আনন্দমার্গ স্কুলের প্রাক্তন ছাত্রের যুগান্তকারী আবিষ্কার

পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার ছেলে সাবির হোসেন এক বিশেষ ধরণের পাউডার আবিষ্কার করেছেন যা ব্যবহারে খুবই অল্প সময়ের মধ্যে ক্ষতস্থানের রক্তপাত বন্ধ হয়ে যাবে৷ পি.এন.এ.

সুপ্রিম কোর্টে সাতে নেই বাংলা প্রতিবাদে সরব ‘আমরা বাঙালী’

সুপ্রিম কোর্ট তার রায় প্রকাশের মাধ্যম হিসাবে হিন্দী, ইংরাজীর সাথে আরও পাঁচটি ভাষাকে বেছে নিয়েছে৷ তার মধ্যে উড়িয়া, অসমিয়া থাকলেও বাংলা ভাষার স্থান হয়নি নিজস্ব সংবাদদাতা

বিশ্ব পরিবেশ দিবসে আবেদন

‘‘মানুষ যেন মানুষের তরে সবকিছু করে যায়৷

               একথাও যেন মনে রাখে পশুপাখী তার পর নয়

নিজস্ব সংবাদদাতা

বাঙলাদেশে আনন্দমার্গের ধর্মমহাসম্মেলন

গত ১৯, ২০, ২১শে এপ্রিল, ২০১৯ বাঙর্লদেশের দিনাজপুর জেলার অন্তর্গত মুকুন্দপুরে সি.ভি.এ ট্রেনিং সেণ্টারে আনন্দমার্গের ধর্মমহাসম্মেলন অনুষ্ঠিত হ’ল৷ এটি হ’ল বাঙলাদেশের বার্ষিক ধর্ম মহাসম্মেলন৷ এই… নিজস্ব সংবাদদাতা

সপ্তদশ দধীচি লহ প্রণাম  বিজন সেতুতে সপ্তদশ দধীচির উদ্দেশ্যে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন, মৌন মিছিল ও প্রতিবাদ সভা

সিপিএমের হার্মাদ বাহিনীর দ্বারা সংঘটিত এই পৈশাচিক হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে আয়োজিত মৌন মিছিল ও তৎপরে বিজন সেতুর ওপরে প্রতিবাদ-সভায় সামিল হন কলকাতার বহু বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী সহ হাজার হাজার আনন্দমার্গী ও… নিজস্ব সংবাদদাতা

জম্মু-কশ্মীরে জঙ্গী হামলায় নিহত ৪০ জওয়ান

গত ১৪ই ফেব্রুয়ারী জম্মু-কশ্মীরের পুলওয়ামা সি.আর.পি.এফ. কনভয়ে বিস্ফোরক ভর্তি একটি গাড়ী নিয়ে জঙ্গীরা ঢুকে পড়ে’ ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটায়৷ ফলে,এই সংবাদ লেখা পর্যন্ত, অন্ততঃ ৪০ জন জওয়ান নিহত হয়েছেন৷ আহত প্রায়… পি.এন.এ.

অথ 'করোনা এক্সপ্রেস’ কথা

জ্যোতিবিকাশ সিন্হা

গত ৯/৬/২০২০ তারিখে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা বিজেপি দলের শীর্ষ নেতা শ্রীযুক্ত অমিত শাহ মহাশয় কয়েক শত কোটি টাকা খরচ করে "ভার্চুয়াল সভা"করলেন দলের নেতা নেত্রী, কর্মী,সমর্থকদের সঙ্গে । উদ্দেশ্য ছিল আগামী দিনে যে সকল রাজ‍্যে, বিশেষতঃ ২০২১ সালে পশ্চিম বঙ্গের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে, সেখানে জোরদার প্রচারের জন্যে কেন্দ্রের বিজেপি তথা এনডিএ সরকারের ছয় বছরের শাসনকালের সাফল্যগুলি তুলে ধরা । সেখানে তিনি মূলত: পশ্চিম বঙ্গের খারাপ অবস্থার প্রতি আক্রমন করতে গিয়ে বলেন, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী শ্রীমতী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শ্রমিক স্পেশাল ট্রেনকে "করোনা এক্সপ্রেস" বলে' লক্ষ লক্ষ পরিযায়ী শ্রমিকদের অপমান করে

ভারত ভূমিতে নেপালের আগ্রাসন

এইচ এন মাহাতো

ভারত ভূমির লিম্পিয়াধুরা, লিপুলেখ, কালা পানি নেপালের অন্তর্ভুক্ত করে নেপাল সরকার তাদের নতুন মানচিত্র নেপাল আইনসভার নিম্নকক্ষে পাস করিয়েছে,  উচ্চকক্ষেও আলোচনার জন্য গৃহীত হয়েছে ।  ভারতের বিরুদ্ধে এটাই তাদের প্রথম পদক্ষেপ নয় । এর সূত্রপাত ভারতের ভূমিতে নেপালীদের বিনা বাধায় ভারতের নাগরিকত্ব প্রদান ও গোর্খা বাহিনীকে এখনো জিইয়ে রাখা । আমরা জানি ইংরেজ সরকার বাঙালী স্বাধীনতা সংগ্রামীদের  কব্জায় আনতে গোর্খা বাহিনীকে বারবার ব্যবহার করেছে । সেই দেশদ্রোহী রেজিমেন্টকে এখনো রেখেছে, পাশাপাশি বেঙ্গল রেজিমেন্টেকে স্বাধীনতার সঙ্গে সঙ্গে ভেঙে দিয়ে বাঙালী বিদ্বেষী কাজ করেছিলো তৎকালীন ভারত সরকার । আজ তার পরিন

পরিযায়ী শ্রমিক বনাম আত্মনির্ভর  ভারত

জ্যোতিবিকাশ সিন্হা

 বর্তমান করোনা মহামারী উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ভারতবর্ষের রাজনীতির উন্মুক্ত আকাশে একটি সুন্দর শব্দবন্ধ " পরিযায়ী পাখী"দের মত বাধাবন্ধহীন ভাবে ভেসে বেড়াচ্ছে---তা হলো "পরিযায়ী শ্রমিক "। আমরা এতদিন স্থানীয় শ্রমিক ও বহিরাগত শ্রমিক দের নাম শুনেছি। কিন্তু করোনা-পরবর্তী সময়ে দীর্ঘ দুই মাসাধিককাল সারাদেশে লকডাউনের ফলে রুজি-রোজগার হারিয়ে নিজেদের গ্রামে, রাজ্যে ও স্থায়ী ঠিকানায় ফিরে যেতে ব্যাকুল ভিনরাজ্যের হাজার হাজার শ্রমিক ট্রেন বাস ইত্যাদি গণপরিবহন না পেয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শত শত মাইল পথ পায়ে হেঁটে বা সাইকেলে পাড়ি দেওয়ার অসমসাহসিক অভিযানে নাবতে বাধ্য হয়েছেন। হাজার হাজার পথচলা শ্রমিকদের সারি দেখেই হয়তো

শ্যামাপ্রসাদের ভাবনায় কি পরিবর্তন এসেছিল?

আচার্য মন্ত্রসিদ্ধানন্দ অবধূত

সুভাষচন্দ্রের অন্তর্ধান রহস্য ও শ্যামাপ্রসাদের মৃত্যু রহস্য স্বাধীনতার ৭২ বছর পরও রহস্যই রয়ে গেল । বর্তমান রাজনীতির আবর্তে সুভাষচন্দ্র অন্তরালেই থেকে যাবেন, কারণ সুভাষ চন্দ্রের  আত্মপ্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসের এক কলঙ্কিত অধ্যায়ের আত্মপ্রকাশ হয়ে যাবে । যে কলঙ্কের কালি থেকে  ডান-বাম-রাম কেউই রেহাই পাবে না । কারণ সেদিন কংগ্রেস, কম্যুনিষ্ট, আর এস.এস সুভাষ বিরোধিতায় সবাই এক  পক্ষ ছিল । স্বাধীনতা পরবর্তী ভারতবর্ষের রাজনীতি ডান-বাম-রামের  বিষাক্ত বৃত্তেই আবর্তিত হচ্ছে । তাই সুভাষ নিয়ে কোন পক্ষই মুখ খুলবে না । কিন্তু শ্যামাপ্রসাদ নিয়ে নীরব কেন বর্তমান কেন্দ্রের শাসক দল?

‘আমরা বাঙালী’র হাত ধরে, বাঙালীস্তানের পথ ধরে গড়ে উঠবে আত্মনির্ভর ভারত

আচার্য মন্ত্রসিদ্ধানন্দ অবধূত

পুঁজিবাদের পয়লা নম্বর দোসর ভারতবর্ষের প্রধানমন্ত্রীর  মুখ দিয়ে হঠাৎ করে আত্মনির্ভর ভারত কথাটি বেরিয়ে এসেছে৷ তিনি এরকম অনেক কথাই বলে থাকেন, যা শুধু কথার কথা, বাস্তবে কোনমূল্য নেই ৷ শূন্য একাউন্টে ১৫লাখ, সুইস ব্যাংকের  কালো টাকা, বছরে দু কোটি চাকরি, এরকম অনেক কথাই প্রধানমন্ত্রী বলে থাকেন যা অলীক স্বপ্ণ বইতো নয়! পুঁজিবাদের হাত ধরে আত্মনির্ভর ভারত--- হয়তো এও এক আকাশ কুসুম! নতুবা প্রধানমন্ত্রী অমানিশার অন্ধকারে  কালো পেঁচা খঁুজতে বেরিয়েছেন৷

এই বিপন্নতার মাঝে কিছু কথা

চণ্ডীচরণ মুড়া, অধ্যাপক, মহারাজা মণীন্দ্রচন্দ্র কলেজ

"পৃথিবীর গভীর গভীরতর অসুখ এখন;
মানুষ তবুও ঋণী পৃথিবীরই কাছে ।’
(‘সুচেতনা'–জীবনানন্দ দাশ)

বাঙালী কবে মানুষ হবে

মন্ত্র আনন্দ

প্রধানমন্ত্রীর ষোলআনা গুজরাটি প্রেম। তাই কংগ্রেস বিদ্বেষী হলেও গান্ধী-পটেল ভক্ত। দুজনেই গুজরাটি কিনা!কংগ্রেসী গুজরাটি পটেলের সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকার মূর্তি, সকালে ঘুম থেকে উঠেই গান্ধীর চরণে প্রণতি।

সমাজতান্ত্রিক ভাবনা

এইচ, এন, মাহাতো

পৃথিবীতে অধ্যাত্মবাদের মাতৃভূমি ভারতবর্ষ। এখানে বর্ষ মানে দেশ। তবে রাজনৈতিক নেতৃত্বের অদুরদৃষ্টির ফলে বর্ষটা পিছনে ফেলে আজ শুধুমাত্র ভারত ভূমি রয়েছে। সেই প্রাচীনকাল থেকে এই দেশটি ছিল সমাজতন্ত্রের প্রতীক। সমাজতন্ত্র ভারতের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ঢুকে আছে। এপ্রসঙ্গে দার্শনিক শ্রীপ্রভাতরঞ্জন সরকার বলেছেন -- " মুনি - ঋষিদের দিব্যজীবনের স্মৃতিচারণও জনগণকে এক সূত্রে গেঁথে দেয়। যখন লোক অতীতের মহান নেতাদের ও পুণ্যাত্মা সাধু-সন্তদের কথা নিজেদের হৃদয়ে লালন করে, তখন সেটা সমষ্টিগত ঐক্যের ভিত্তি গড়ে তোলে । " অর্থাৎ সুদূর অতীতের  মানুষের মনস্তাত্ত্বিক চিন্তাধারায় ও ঋক্ বেদের বাণীতেও সংগচ্ছধ্বং সংবোদধ্বং----- দে

সেই সুদিনের প্রত্যাশায়

বিশ্বদেব মুখোপাধ্যায়

শ্রমজীবি মানুষেরা এক রাজ্য থেকে অন্য রাজ্যে কাজের সন্ধানে যেতেন, সে খবর কমবেশি দেশের অধিকাংশ মানুষই জানতেন । কিন্তু সেই সংখ্যাটা যে কত তা সাধারণ মানুষ কেন, সরকারও জানত না, তা বোঝা গেল ।করোনা পরিস্থিতিতে দেশে লকডাউন জারি হওয়ার পর এখন যে ছবি আমাদের চোখের সামনে টিভির মাধ্যমে ভেসে উঠছে,তা দেখে যেকোনো বিবেকবান মানুষ শিউরে উঠবেই । শিশু মহিলা সহ হাজার হাজার মানুষ যেভাবে জাতীয় সড়ক ধরে, কোথাও বা রেললাইন ধরে, কেউ সাইকেল চালিয়ে, আবার কেউ কেউ বাসে বা ট্রাকে গাদাগাদি করে  নিজ বাড়িতে ফেরার আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছে সেই কষ্ট চোখে দেখা যায় না । আজো ট্রেনে করে নিজ রাজ্যে ফেরার স্রোত অব্যাহত । কবে এই ফেরা