স্বাস্থ্য বিজ্ঞান

নবজাতকদের জন্যে বাড়তি সর্তকতা

ডাঃ আলমগীর

নবজাতকের জন্যে বাড়তি সর্তকতার প্রয়োজন৷ এমনিতে নবজাতকের জন্যে অনেক আয়োজন থাকে৷ সে থাকলেও তার জন্যে বাড়তি যত্নের প্রয়োজন৷ প্রথমতঃ নবজাতককে নিয়ে বাইরে বেশী ঘোরাঘুরি করা উচিত নয়৷ এই ঋতু পরিবর্তনের সময় বেশী ঘোরাঘুরি করলে নবজাতক ঠাণ্ডায় আক্রান্ত হতে পারে৷ তা থেকে নিউমোনিয়া পর্যন্ত হতে পারে৷ তাই নবজাতকের জন্যে কি ধরনের যত্ন নেওয়া প্রয়োজন সে সম্বন্ধে শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা যা বলে থাকেন সে সম্বন্ধে কিছু আলোচনা করা হ’ল–

শিশুদের সর্দি–কাশিতে আক্রান্ত হওয়া থেকে বাঁচাতে অভিভাবকদের করণীয়

ডাঃ আলমগীর

সর্দি–কাশি কেন হয়? সর্দি–কাশি কেন হয় তা জানতে হলে প্রথমেই কয়েকটি বিষয় জানা প্রয়োজন৷ বিশেষ করে বংশগত ধারা, অ্যালার্জি ও ঋতু পরিবর্ত্তন উল্লেখযোগ্য কারণ৷

ক্রোধ হৃদরোগ বৃদ্ধি করে

পি.এন.এ.

ক্রোধের কারণে হৃদ্রোগের সম্ভাবনা তিনগুন বৃদ্ধি পায়৷ যাঁরা  কথায় কথায়  চট করে রেগে যান, ৫৫ বছর বয়স  হওয়ার আগেই  তাদের  হৃদরোগের ঝঁুকি স্বাভাবিক আচরণকারীদের তুলনায় বেশী৷ এমনকি  রাগান্বিত হওয়ার দুই  ঘন্টার মধ্যেই হৃদ্রোগে আক্রান্ত হওয়ায় আশঙ্কাও দ্বিগুণ থাকে৷ উপরিউক্ত অভিমত দিয়েছেন আমেরিকার বিখ্যাত জন হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষক৷

একজিমা

লক্ষণ ঃ ক্ষত থেকে রসস্রবণ, চুলকানি, জ্বালাপোড়া ও দপদপানির ভাব, প্রতি বৎসরই রোগের পুনরুদয়, রোগজনিত শারীরিক দুর্বলতা ও মধ্যে মধ্যে জ্বর, সময় সময় রোগের অতি প্রকোপের ফলে দেহের অস্থি পর্যন্ত বেরিয়ে আসা এই রোগের লক্ষণ৷

কলা

যদিও সাধারণ অর্থে ‘কদলী’ বলতে সব কলাকেই বোঝায়, তবু বিশেষ অর্থে ‘কদলী’ অর্থে কাঁচকলা আর ‘রম্ভা’ মানে পাকা কলা৷ এখানে কাঁচকলা বলতে আমরা সেই কলাকে বোঝাচ্ছি যা কাঁচা অবস্থায় তরকারী রেঁধে খাওয়া হয়, আর পাকা অবস্থায় সাধারণতঃ খাওয়া হয় না৷ কলা সমস্ত গ্রীষ্মপ্রধান দেশেই জন্মায়৷ তবে কলার আদি নিবাস পূর্ব ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জ– East Indies Archipellagoঅর্থাৎ মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপিন্স প্রভৃতি দেশ৷ ভারতও অন্যতম কলা–উৎপাদনকারী দেশ৷ কেবল ভারতেই শতাধিক প্রজাতির গাছ রয়েছে৷ ভারত ও বহির্ভারত নিয়ে সমগ্র বিশ্বে কলার প্রজাতির সংখ্যা দেড় হাজারের মত৷ ভারতের কেরলেই সবচেয়ে বেশী প্রজাতির কলা পাওয়া যায়৷ বাংলায় সবচেয়

কাঁটাল

কাঁটাল ভারত ও দক্ষিণ–পূর্ব এশিয়ার একটি নামকরা ফল৷ শব্দটির উৎপত্তি সংস্কৃত ‘কন্টকীফলম্’ থেকে অর্থাৎ যে ফলের গায়ে কাঁটা আছে৷ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে প্রায় ৪৭ প্রজাতির কাঁটাল পাওয়া যায়৷ কাঁটাল একটি পুষ্টিকর খাদ্য, তবে কিছুটা দুষ্পাচ্য৷ কাঁচা কাঁটাল (যাকে বাংলায় এঁচোড় বলা হয়) গুণগত বিচারে মাংসের সমান, অথচ মাংসের তামসিক দোষ এতে নেই৷ বাংলায় কাঁচা কাঁটালকে অনেকে ‘‘গাছপাঁঠা’’ বলে থাকেন৷ কাঁটালের বীজ আলুর চেয়েও অনেক বেশী পুষ্টিকর ও সুস্বাদু৷ ভারতে আলু আসবার আগে পর্যন্ত ভারতের মানুষ কাঁটাল বীজই মুখ্য তরকারী রূপে ব্যবহার করত৷ এখনও খাদ্য হিসেবে কাঁটাল বীজের ব্যবহার আছে৷ কাঁটালের একটি ভিন্ন প্রজাতি–রুটিফল

টমেটো

লৌকিক সংসৃক্তে ‘কৃমীলক’ মানে টমেটো৷ এই মৌলিক আমেরিকাজাত সব্জি বা ফলটি সেখানকার আদি বাসিন্দারা এর বুনো গন্ধের জন্যে নিজেরা খেতেন না–গৃহপালিত পশুকে খাওয়াতেন৷ এতে পশুও হৃষ্ট–পুষ্ট হত, দুধ দিত বেশী৷ ইউরোপীয়রা আমেরিকায় গিয়ে এই সব্জিটির সংস্পর্শে এসে একে মনুষ্য খাদ্যরূপে গ্রহণ করলেন৷ খেতে শুরু করলেন লবণ সহযোগে ফল হিসেবে৷ এর থেকে তৈরি হল সস্, মার্মালেড, জেলি প্রভৃতি৷ এর রস থেকে তৈরি করলেন কয়েকটি ঔষধও৷ তাঁরা জেনে ফেললেন, এতে রয়েছে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ খনিজ লবণ ও মূল্যবান বিটামিন৷ টমাটো কাঁচা স্যালাড হিসেবে বা স্যুপ হিসেবে অথবা টমাটোর রস নিয়মিত ভাবে খাওয়া উচিত, কেননা এটি লিবার ও প্রোস্টেট গ্ল্যান্ডের

পালং শাক

শাক বা পত্রশাকেদের মধ্যে পালং একটি উত্তম মানের শাক৷ অতি মাত্রায় ভক্ষণ করলে শ্লেষ্মাবৃদ্ধি ঘটে৷ অন্যথায় এই শাক গুণেরই আকর৷ শাকটি খেতে মিষ্টি মিষ্টি, সুস্বাদু, শরীরের পক্ষে হিতকর প্রভাব–সম্পন্ন, কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে, হৃদ্রোগের ঔষধ (পালং শাকের ক্কাথ), শ্বাসরোগের ঔষধ (পালং শাকের রস), লিবারের ক্ষতের ঔষধ ও বিষক্রিয়া–নাশক৷ বিটামিনে পরিপূর্ণ এই শাকটি গুণের তুলনায় খুবই সস্তা৷ ভাজা না করে ঘন্ট বা চচ্চড়িতে ব্যবহার করাই বেশী ভাল৷ ভাজা খেতে গেলে কম তেলে ভাজতে হবে৷

শোভাঞ্জন বা শোজনে

পরিচয় ও প্রজাতি ঃ তোমরা শোভাঞ্জন বা শোজনের অথবা (Moringa oleifera pterygosperma Gaetn.) সঙ্গে ভাল ভাবেই পরিচিত৷ শোভাঞ্জন ঞ্ছ শোহাঞ্জন ঞ্ছ শোআঞ্জন ঞ্ছ শোজিনা ঞ্ছ শোজনে৷ শোভাঞ্জন শব্দের ভাবারূঢ়ার্থ হ’ল চোখের শোভা৷ শীতকালে যখন শাদা শোজনে ফুলে গাছ ভরে যায় তখন তা দেখতে ভারী সুন্দর লাগে৷ তাই এর নাম শোভাঞ্জন৷ শোজনের ফুল আসে শীতের মাঝামাঝি সময়ে৷ ডাঁটা ধরে শীতের শেষে–সেই সময়ে যে সময়ে বসন্ত রোগের প্রাদুর্ভাব হয়৷

হৃদ্রোগ (হার্ট ডিজিজ)

লক্ষণ ঃ বুকের মধ্যে জোর শব্দ হওয়া, বুকে ব্যথা, নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট বোধ হওয়া, হাত পা থর থর করে কাঁপা প্রভৃতি৷

কারণ ঃ হৃদরোগের পেছনে অজস্র কারণ থাকতে পারে৷

১) পাকস্থলীকে যাঁরা সব সময় খুব বেশী ভারাক্রান্ত করে রাখেন, তাঁদের পাকস্থলীতে অধিক পরিমাণে রক্ত সঞ্চালনের আবশ্যকতা দেখা দেয় ও ওই রক্ত যুগিয়ে চলবার জন্যে হৃদ্যন্ত্রকে অত্যধিক পরিশ্রম করতে হয়, যার ফলে তা’ দুর্বল হয়ে’ পড়ে৷