আনন্দমার্গ স্কুলের প্রাক্তন ছাত্রের যুগান্তকারী আবিষ্কার

পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার ছেলে সাবির হোসেন এক বিশেষ ধরণের পাউডার আবিষ্কার করেছেন যা ব্যবহারে খুবই অল্প সময়ের মধ্যে ক্ষতস্থানের রক্তপাত বন্ধ হয়ে যাবে৷ পি.এন.এ.

সুপ্রিম কোর্টে সাতে নেই বাংলা প্রতিবাদে সরব ‘আমরা বাঙালী’

সুপ্রিম কোর্ট তার রায় প্রকাশের মাধ্যম হিসাবে হিন্দী, ইংরাজীর সাথে আরও পাঁচটি ভাষাকে বেছে নিয়েছে৷ তার মধ্যে উড়িয়া, অসমিয়া থাকলেও বাংলা ভাষার স্থান হয়নি নিজস্ব সংবাদদাতা

বিশ্ব পরিবেশ দিবসে আবেদন

‘‘মানুষ যেন মানুষের তরে সবকিছু করে যায়৷

               একথাও যেন মনে রাখে পশুপাখী তার পর নয়

নিজস্ব সংবাদদাতা

বাঙলাদেশে আনন্দমার্গের ধর্মমহাসম্মেলন

গত ১৯, ২০, ২১শে এপ্রিল, ২০১৯ বাঙর্লদেশের দিনাজপুর জেলার অন্তর্গত মুকুন্দপুরে সি.ভি.এ ট্রেনিং সেণ্টারে আনন্দমার্গের ধর্মমহাসম্মেলন অনুষ্ঠিত হ’ল৷ এটি হ’ল বাঙলাদেশের বার্ষিক ধর্ম মহাসম্মেলন৷ এই… নিজস্ব সংবাদদাতা

সপ্তদশ দধীচি লহ প্রণাম  বিজন সেতুতে সপ্তদশ দধীচির উদ্দেশ্যে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন, মৌন মিছিল ও প্রতিবাদ সভা

সিপিএমের হার্মাদ বাহিনীর দ্বারা সংঘটিত এই পৈশাচিক হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে আয়োজিত মৌন মিছিল ও তৎপরে বিজন সেতুর ওপরে প্রতিবাদ-সভায় সামিল হন কলকাতার বহু বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী সহ হাজার হাজার আনন্দমার্গী ও… নিজস্ব সংবাদদাতা

জম্মু-কশ্মীরে জঙ্গী হামলায় নিহত ৪০ জওয়ান

গত ১৪ই ফেব্রুয়ারী জম্মু-কশ্মীরের পুলওয়ামা সি.আর.পি.এফ. কনভয়ে বিস্ফোরক ভর্তি একটি গাড়ী নিয়ে জঙ্গীরা ঢুকে পড়ে’ ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটায়৷ ফলে,এই সংবাদ লেখা পর্যন্ত, অন্ততঃ ৪০ জন জওয়ান নিহত হয়েছেন৷ আহত প্রায়… পি.এন.এ.

‘‘তন্মাত্র ও মাইক্রোবাইটাম’’

সমরেন্দ্রনাথ ভৌমিক

মাইক্রোবাইটাম ধনাত্মক কিংবা ঋনাত্মক যাই হোক না কেন এরা অত্যধিক সুক্ষ্ম সত্তা৷ তাই সবকটি তন্মাত্রের মধ্য দিয়েই এরা বাহিত হয়৷ যতগুলি তন্মাত্র আছে, তার মধ্যে শব্দ তন্মাত্র হ’ল  সব চাইতে সুক্ষ্ম তন্মাত্র৷ এই শব্দ তন্মাত্র আমাদের শ্রবণ নাড়ীতে গৃহীত ও বাহিত হয় এবং বিভিন্ন গতিশীল সত্তায় স্পন্দিত হয়৷ শব্দ-তন্মাত্রের চেয়ে স্পর্শ-তন্মাত্র বেশী সূথল, এর চাইতেও বেশী স্থূল হ’ল রূপ-তন্মাত্র ৷ এইরূপ তন্মাত্র আলোক তরঙ্গে গৃহীত ও বাহিত হয়৷ আবার রূপ তন্মাত্রের চেয়ে রস-তন্মাত্র আরো বেশী স্থূল, যা তরলের মধ্যে গৃহীত ও বাহিত হয়৷ সব চাইতে স্থূল তন্মাত্র হ’ল গন্ধ-তন্মাত্র, যা গন্ধরেণুর দ্বারা বাহিত হয়৷

জড়বাদ, পুঁজিবাদ ও ভাবজড়তা কেন্দ্রিক দর্শনের ত্রুটি - ঈশ্বরকেন্দ্রিক দর্শনের শ্রেষ্ঠত্ব

আচার্য সত্যশিবানন্দ অবধূ্ত

মানুষ সাধারণতঃ যে সমস্ত দর্শনকে মেনে চলে তাদের ৪শ্রেণীতে ভাগ করা যায়৷

১) জড় কেন্দ্রিক দর্শন Matter Centered Philosophy)

২) আত্মস্বার্থকেন্দ্রিক দর্শন Self Centered Philosophy)

৩) ডগ্মা বা ভাবজড়তা কেন্দ্রিক দর্শন Dogma  Centered Philosophy)

৪) ঈশ্বরকেন্দ্রিক দর্শন God Centered Philosophy)

জড়কেন্দ্রিক দর্শন

 এই দর্শনের অনুসারীরা জড় ছাড়া অন্য কোনো কিছুর অস্তিত্ব স্বীকার  করে না৷ এরা বলে, মন জড়েরই  গুণ, এছাড়া বেশি কিছু নয়৷ চৈতন্য বা পরমাত্মাকেও এরা মানে না৷  মাকর্সবাদ জড়কেন্দ্রিক দর্শনের উদাহরণ৷

পশ্চিমবঙ্গ কারো অবদান নয়, সাম্রাজ্যবাদী চক্রান্তের ফল

পথিক বর

পশ্চিমবঙ্গের কিছু উঠতি নেতা শ্যামাপ্রসাদকে নিয়ে  জঘন্য রাজনীতি করছে তাঁরা শ্রদ্ধার নামে শ্যামাপ্রসাদকে অশ্রদ্ধা ও অসম্মান করছে৷ ইতিহাসকে বিকৃত করে প্রচার করছে, পশ্চিমবঙ্গ শ্যামাপ্রসাদের অবদান৷ বাস্তব তা নয়৷ একথা সবাই জানে, বঙ্গভঙ্গের চক্রান্ত ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের৷ ১৯০৫ সালে প্রথম ব্রিটিশ শাসক বাঙলাকে ভাগ করেছিল৷ কিন্তু  বাঙালীর ঐক্যবদ্ধ গণ আন্দোলনের সামনে মাথা নত করতে বাধ্য হয় ব্রিটিশ শাসক৷ তাই সেদিন বঙ্গভঙ্গের চক্রান্ত ব্যর্থ হয়৷ কিন্তু বঙ্গভঙ্গের পরিকল্পনা থেকে সরে আসেনি৷

পরিবেশ

কণিকা দেবনাথ

পরম শ্রদ্ধেয় দার্শনিক শ্রীপ্রভাতরঞ্জন সরকার তাঁর রচিত একটি গানের মধ্যে বলেছেন--- ‘মানুষ যেন  মানুষের তরে সব কিছু করে যায়, একথাও যেন মনে  রাখে৷ পশু পাখী তার পর নয়, তরুও বাঁচিতে চায়৷’

মানুষ পশু পাখী তরুলতা,জলবায়ু মাটি সব নিয়েই আমাদের পরিবেশ৷ এই পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হলে পৃথিবী বসবাসের অযোগ্য হয়ে যাবে৷ এই সহজ সত্যটা জানা সত্ত্বেও মানুষের সীমাহীন লোভ দিন দিন পরিবেশকে বিষময় করে তুলছে৷ বিশেষ করে যন্ত্র শিল্পের  বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে পরিবেশ দূষণও পাল্লা দিয়ে বেড়ে চলেছে৷

আজ বলব শুধু বায়ু দূষণের কথা---

যোগ ও সর্বাঙ্গীন স্বাস্থ্য

যোগাচার্য্য

স্বাস্থ্য বলতে সাধারণতঃ মানুষের ধারণা শরীরটা সুস্থ থাকা৷ না, শুধু শরীর সুস্থ থাকলেই তাকে স্বাস্থ্য বলা হয় না৷ ধরা যাক, একজন শারীরিক ভাবে সুস্থ কিন্তু প্রচণ্ড ধরণের মানসিক বিষাদে ভুগছে৷ তাকে কী করে সুস্থ বলতে পারি কিছুদিন পর মানসিক বিষাদ থেকে তার পরিপাক ক্রিয়ায় ত্রুটি দেখা দেবে, ও তারপর নানান দৈহিক রোগেরও শিকার হবে৷ তাই বলছি, কেবল শারীরিক সুস্থতাকে স্বাস্থ্য বলে না৷

চীন নেপালের ভারত দখলের কারণ,  সমস্যা ও সমাধান

রঞ্জিত বিশ্বাস

একদিকে মহামারি করোনা সারা পৃথিবীর মানুষের জীবন দখল করে সর্বনাশ করে চলেছে আর এই  পরিস্থিতিতেই অন্যদিকে  চীন  ও নেপাল ভারত দখলে করে নিচ্ছে৷ সম্প্রতি প্রাপ্ত  খবর অনুযায়ী, চীন  ভারতের অরুণাচল প্রদেশ লাদাখ সীমান্তে ঢুকে পড়েছে এবং প্রতিবেশী রাষ্ট্র নেপাল তাদের মানচিত্র  সংশোধন করে ভারতের তিনটি জায়গা দখল করে নিয়েছে! আরো ভয়ঙ্কর খবর, চীন নাকি এখন পর্যন্ত ভারতের  ভূখণ্ডের  এক বিশাল এলাকায় ঢুকে পড়েছে সেই নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার  ও ভারতীয় প্রধান মিডিয়াগুলো এখনও চুপ! আর ওই দিকে নেপাল  সীমান্ত গোর্র্খ সেনা বিনা প্ররোচনায় একজন ভারতীয়কে গুলি করে হত্যা করেছে ও কয়েকজন ভারতীয়দের আটক করে রেখেছে! আর রেখেছে!

ত্রিপুরায় বাঙালীর অস্তিত্ব সঙ্কট

দুলাল ঘোষ

বাঙালীদের জন্য সুখবর--- এন.আর.সির দাবি নিয়ে চলছে আন্দোলন, আমরা কিন্তু কেউ বাঙালী না৷ আমরা এখন নিজেকে  বড় কংগ্রেস, কমরেড, বিজেপি বলতে ভালোবাসি৷ বাঙালী পরিচয় দিতে সাম্প্রদায়িকতার গন্ধ পাই৷ আমরা এখন রবীঠাকুর, বিনয়, বাদল, দীনেশ, সুকান্ত, নজরুল,নেতাজীর বংশধরের বাঙালী পরিচয় দিতে লজ্জা পাই৷ আমরা এখন লেলিনের, চের, বড় বড় নেতাদের কথায় নাচতে ভালোবাসি৷ যদি ছেলেটার, চাকরি হয়, যদি লোনটা পায়৷

‘‘বিশ্ব সাথে যোগে যেথায় বিহারো’’

আচার্য মন্ত্রসিদ্ধানন্দ অবধূত

যোগ আজ সারা পৃথিবীতে বহু আলোচিত ও অনুশীলিত৷ কিন্তু যোগের তাৎপর্য, যোগ অভ্যাসের প্রভাব ও যোগের আসল লক্ষ্য এক কথায় যোগ সম্পর্কে সম্যক ধারণা খুব কম মানুষেরই আছে৷ আর মানুষের অজ্ঞতার সুযোগে কিছু  স্বার্থপর মানুষ যোগের অপব্যবহার করছে ও যোগের মাধ্যমে অর্থ উপার্জনের পথ করে নিচ্ছে৷ অনেকে আবার যোগ বলতে শুধু আসন প্রাণায়ামকেই বোঝে৷ তাই যোগাসন কথাটাই বহুল প্রচলিত৷

সংহতি ও সমৃদ্ধির ভারত

এইচ.এন. মাহাতো

ভারতীয় বলতে আমরা বুঝি কোন একটি জাতিগত সাদৃশ্য বা কোন একটি ধর্মীয় মতবাদের ওপর প্রতিষ্ঠিত জনগোষ্ঠী নয়৷ ভাষাগত ও সাংসৃকতিকগত ভাবে ৪৪টি জনগোষ্ঠীর সমন্বয়ে গঠিত একটি যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো ভারত ভূমি৷

চিন ও নেপালের যুদ্ধং দেহি মনোভাব ভারতের জনগণকে টলাতে পারবে না

প্রভাত খাঁ

ভারতের দুই প্রতিবেশী রাষ্ট্র নেপাল ও চিনভারতের সঙ্গে যুদ্ধ করার পরিবেশ সৃষ্টি করেছে৷ শুধু তাই নয়, গত ১৬ই জুন সংবাদে  প্রকাশ লাদাখে ভারত ও চীন সেনা সংঘর্ষ হয়৷ এতে ভারতের প্রায় ২০ জন সেনা ও অফিসার প্রাণ দিয়েছেন ও আহত হয়েছেন অনেকে ৷ অন্যদিকে চীনের বেশ কিছু সেনা প্রাণ দিয়েছেন ও আহত হয়েছেন৷ এই ঘটনার মূল কারণ হলো গালওয়ান উপতক্যা থেকে সেনা সরিয়ে নেওয়ার প্রক্রিয়া চলা কালে গত সোমবার রাতে সেনাদের মধ্যে লড়াই হয়৷ মনে পড়ে ১৯৬২ সালে চিন হঠাৎ ভারত আক্রমন করে,তাতে ভারতের  অনেক সেনা নিহত ও আহত হন৷  ১৯৭৫ সালে আবার চীন ভারত সংঘর্ষ হয় তাতে  দু’পক্ষের সেনা নিহত হন ও আহত হন৷ এবার ২০২০ সালে ১৫ই জুন লাদাখে ভারতীয়