সম্পাদকীয়

আগুন নিয়ে খেলা ভাল নয়

আচার্য সত্যশিবানন্দ অবধূত

গত নবেম্বর মাসের মাঝামাঝি থেকে দিল্লির উপকন্ঠে প্রায় দেড়মাস ধরে কেন্দ্রের কৃষি আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন চলছে৷ গত ১লা জানুয়ারী তীব্র ঠাণ্ডায় মৃত্যু হ’ল এক কর্ষকের৷ দিল্লি-উত্তর প্রদেশের গাজিপুর সীমানায় মৃত কর্ষক গলন সিং তোমর উত্তর প্রদেশের  মজিদাবাদের বাসিন্দা৷ ময়না তদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টে বলা হয়েছে,তীব্র ঠাণ্ডার কারণেই তার মৃত্যু হয়েছে৷ বয়স সত্তরোধর্ব৷

আহ্বান---নোতুন দিনের রক্তিম ঊষার পানে

আচার্য সত্যশিবানন্দ অবধূত

২০২০-এর অন্তিমলগ্ণে দেখছি রাজ্য রাজনীতিতে দলবদলের হিড়িক পড়ে গেছে৷ এ রাজ্যে কিছুদিন আগে পর্যন্ত বিভিন্ন দল থেকে তৃণমূল কংগ্রেসে দলবদল করে আসার একটা প্রবণতা দেখা গিয়েছিল৷ এখন বিজেপি দলে ঢোকার প্রবণতা বেশি দেখা যাচ্ছে৷ গত কয়েকদিন আগে তৃণমূল  কংগ্রেসের হেভিওয়েট নেতা শুভেন্দু অধিকারী যিনি তিন তিনটে বিভাগের মন্ত্রী ছিলেন, যাঁকে এক সময় মনে করা হ’ত মমতার পরই এঁর স্থান তিনিও বিজেপি-তে নাম  লেখালেন৷ একই দিনে তিনি তৃণমূল কংগ্রেসের ৯জন বিধায়ক, ১জন সাংসদ ও একজন প্রাক্তন মন্ত্রীকেও বিজেপিতে নিয়ে এলেন৷ অন্যদিকে আদর্শগত দিক থেকে  যে সব দলের  স্থান একেবারে বিপরীত  মেরুতে সেই সিপিএম ও সিপিআই দলের যথাক্রমে তা

কেন্দ্রিত  অর্থব্যবস্থার পরিবর্তন চাই

আচার্য সত্যশিবানন্দ অবধূত

সম্প্রতি সংবাদে প্রকাশ ২০২০ সালে সারা দেশের অর্থনীতি যেখানে বিধবস্ত, বহু ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প বন্ধ হয়ে গেছে, কোটি কোটি সাধারণ মানুষ দারিদ্র্য ও বেকারত্বের জ্বালায় জ্বলে পুড়ে মরছে অনাহারে৷ মৃত্যু অভাবে, ঋণশোধ করতে অসমর্থ হয়ে আত্মহত্যার বহু সংবাদও সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়েছে,সেখানে এই বছরেই এই দেশেরই সাতজন ধনকুবেরের সম্পত্তি বৃদ্ধি পেয়েছে ৪,৭১,২৯৬ কোটি টাকা৷ কী অদ্ভূত বৈপরিত্ব!

লোকালয়ে বাঘ!

আচার্য সত্যশিবানন্দ অবধূত

দেশের প্রধানমন্ত্রী মোদিজী বর্তমানকালে তাঁর প্রায় প্রতিটি বত্তৃণতাতেই দেশের আত্মনির্ভরতার শ্লোগান দিয়ে তাঁর সরকারের অবদান সম্পর্কে ঢাক-ঢোল পিটিয়ে চলেছেন৷ এদিকে  প্রায়  তিন সপ্তাহ দেশজুড়ে কর্ষক আন্দোলন চলছে৷ এই শীতের  ঠাণ্ডায় আবাল-বৃদ্ধ-বণিতা দিল্লির প্রবেশের পথ অবরুদ্ধ করে অবস্থান করছে পঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থান সহ দেশের বিভিন্ন রাজ্যের কর্ষক সম্প্রদায়৷ তাদের দাবী, সরকার তিন কৃষি আইন পাশ করিয়ে  লোকালয়ে  বাঘ ছেড়ে দিয়েছেন৷ আম্বানি আদানি প্রভৃতি বৃহৎ পুঁজিপতিদের কৃষিক্ষেত্রে অবাধ লুন্ঠন করার ছাড়পত্র দিয়ে দিয়েছেন৷ তাই এই তিন কৃষি আইন প্রত্যাহার করে কর্ষক সম্প্রদায়কে বাঁচাতে হবে৷

কেন্দ্রের কর্ষক স্বার্থবিরোধী কৃষি আইনের প্রতিবাদ

আচার্য সত্যশিবানন্দ অবধূত

সংসদে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতার জোরে কেন্দ্র পুঁজিপতিদের স্বার্থে কর্ষক (কৃষক) বিরোধী কৃষিবিল পাশ করিয়ে আইনে পরিণত করেছে৷ তার প্রতিবাদে সারা দেশ আন্দোলনে উত্তাল৷ হরিয়ানা, পঞ্জাব ও উত্তরপ্রদেশের চাষীরা দিল্লি অবরোধ করে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে৷ ৮ই ডিসেম্বর কেন্দ্রের কৃষি আইনের প্রতিবাদে ভারত বন্‌ধ পালিত হ’ল

কিন্তু মোদি সরকার কর্ষকদের দাবী মানতে নারাজ৷ মোদিজী বলেই চলেছেন, তাঁরা চাষীদের শৃঙ্খলমুক্তির জন্যেই এই আইন পাশ  করিয়েছে৷ কী আছে এই আইনে? এই আইনের একটি দিক হ’ল---অত্যাবশ্যক পণ্য আইন সংশোধন৷

কেন্দ্রের কর্ষক স্বার্থবিরোধী কৃষি আইনের প্রতিবাদ

আচার্য সত্যশিবানন্দ অবধূত

সংসদে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতার জোরে কেন্দ্র পুঁজিপতিদের স্বার্থে কর্ষক (কৃষক) বিরোধী কৃষিবিল পাশ করিয়ে আইনে পরিণত করেছে৷ তার প্রতিবাদে সারা দেশ আন্দোলনে উত্তাল৷ হরিয়ানা, পঞ্জাব ও উত্তরপ্রদেশের চাষীরা দিল্লি অবরোধ করে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে৷ ৮ই ডিসেম্বর কেন্দ্রের কৃষি আইনের প্রতিবাদে ভারত বন্ধ পালিত হ’ল

কিন্তু মোদি সরকার কর্ষকদের দাবী মানতে নারাজ৷ মোদিজী বলেই চলেছেন, তাঁরা চাষীদের শৃঙ্খলমুক্তির জন্যেই এই আইন পাশ  করিয়েছে৷ কী আছে এই আইনে? এই আইনের একটি দিক হ’ল---অত্যাবশ্যক পণ্য আইন সংশোধন৷

 ত্রিপুরায় বাঙালী নির্যাতনের বিরুদ্ধে চাই সমস্ত বাঙালীদের ঐক্যবদ্ধ প্রতিবাদ

আচার্য সত্যশিবানন্দ অবধূত

উত্তর ত্রিপুরায় মিজোরাম থেকে আসা রিয়াং শরণার্থীদের উগ্রবাদীরা দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় বাঙালীদের ঘরবাড়ী ভাঙচুর  করছে, ধনসম্পদ লুঠ করছে ও নানাভাবে বাঙালীদের ওপর নির্যাতন চালাচ্ছে৷ কিছুদিন আগে এক বাঙালী সরকারী কর্মী সুবল দে কর্মসংস্থান থেকে বাড়ী ফেরার পথে রিয়ান উগ্রবাদীদের হাতে আক্রান্ত হয়ে গুরুতর আহত হয়েছে৷ এই পরিস্থিতিতে ‘আমরা বাঙালী’ সহ কয়েকটি বাঙালী গণসংঘটন কাঞ্চনপুর পানিসাগর মোড়ে রাজপথ অবরোধের ডাক দেয়৷ অবরোধ শুরু হওয়ার আগেই পুলিশ বাঙালী জনতার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে ও গুলি চালায়, পুলিশেরগুলিতে ১জন নিহত ও অনেকে আহত  হয়ে হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা কসছে৷

সামঞ্জস্যপূর্ণ ত্রিস্তরীয় উন্নতিই প্রকৃত উন্নতি

আচার্য সত্যশিবানন্দ অবধূত

মানুষের অস্তিত্ব ত্রিস্তরীয়---শারীরিক, মানসিক ও আত্মিক৷ মানুষের উন্নতি মানে এই ত্রিস্তরীয় সামঞ্জস্যপূর্ণ উন্নতি৷ এই সামঞ্জস্যপূর্ণ উন্নতি যদি না থাকে তাহলে উন্নতির পরিবর্তে অবনতি হবে৷ বর্তমানে বিজ্ঞান-প্রযুক্তির হাত ধরে বা আধুনিকতার ছাপ মেরে যে বিপুল উন্নতির বড়াই আমরা করি এই তথাকথিত উন্নতি যে অনেক জটিল প্রশ্ণের সম্মুখে আমাদের দাঁড় করিয়ে দিয়েছে, তা আজ কেউ অস্বীকার করতে পারবেন না৷

মহিলাদের প্রতি পাশবিক অত্যাচারের বিজ্ঞানসম্মত সমীক্ষা

আচার্য সত্যশিবানন্দ অবধূত

দেশে মহিলাদের ওপর পাশবিক অত্যাচার কেন বাড়ছে? কেন মেয়েদের ওপর বলাৎকার করে নৃশংস খুনের ঘটনা বেড়েই চলেছে?

হাথরস কাণ্ড সভ্যতার  কলঙ্ক ঃ সমস্যার সমাধান কোন্ পথে?

আচার্য সত্যশিবানন্দ অবধূত

বিশ্বসৃষ্টির দুটি ধারা৷ প্রথম ধারা হ’ল ভূমাচৈতন্য থেকে জড়জগৎ সৃষ্টি---সূক্ষ্মতম সত্তা থেকে স্থূলতম জড় সৃষ্টি৷ এটাকে বলে সঞ্চরধারা৷ আর এর পরবর্তী ধারা হ’ল প্রতিসঞ্চর ধারা৷ এককোষী জীব থেকে চেতনার বিকাশ হতে হতে বিভিন্ন জীবজন্তু সৃষ্টির পর মানুষের যে সৃষ্টি ও পরে মানুষের বিকাশ--- এটাকেই বলা হয় প্রতিসঞ্চর ধারা৷ প্রতিসঞ্চর ধারায় বুদ্ধি-চিন্তা চেতনা তথা বিবেকের বিকাশ হয়৷ সৃষ্টির এটাকেই স্বাভাবিক বিকাশ বলা হয়৷ কিন্তু বর্তমানে কি ‘ঋণাত্মক অর্র্থৎ নেগেটিব প্রতিসঞ্চর ধারা বেয়ে মানবসভ্যতা এগিয়ে চলেছে৷ মানে---প্রগতির  উল্টো দিকে --- অধঃপতনের দিকে চলেছে? মানুষ থেকে পশু-জন্তু-জানোয়ারদের দিকে চলছে?