সংবাদ দর্পণ

১১ই মার্চ নোতুন পৃথিবী কার্যালয়ে মার্গগুরু শ্রীশ্রীআনন্দমূর্ত্তিজী শুভ পদার্পণ দিবস উদ্যাপন

সংবাদদাতা
নিজস্ব সংবাদদাতা
সময়

১৯৭৯ সালের ১১ই মার্চ মার্গগুরু শ্রীশ্রীআনন্দমূর্ত্তিজী ‘নোতুন পৃথিবী’ কার্যালয়ে শুভ পদার্পণ করেছিলেন৷ ওই দিনটিকে স্মরণ করে আগামী ১১ই মার্চ পরমারাধ্য শ্রীশ্রীআনন্দমূর্ত্তিজী শুভ পদার্পণ দিবস পালন করা হবে৷ এই উপলক্ষ্যে অখণ্ড কীর্ত্তন, মিলিত সাধনা, গুরুপূজা, মার্গগুরুদেবের স্মৃতিচারণ, আলোচনা ও মিলিত আহারের কর্মসূচী রয়েছে৷

নোতুন পৃথিবীর সমস্ত সাংবাদিক, লেখক, কর্মী ও শুভানুধ্যায়ীদের আমরা এই শুভ অনুষ্ঠানে যোগদানের জন্যে সকাল ৮টার মধ্যে আমাদের কার্যালয়ে উপস্থিত হতে অনুরোধ জানাই৷ এই অনুষ্ঠানকে সাফল্যমণ্ডিত করতে সকলের সাহায্য ও সহযোগিতা একান্তভাবে কামনা করি৷ 

–নোতুন পৃথিবীর পরিচালক ও কর্মীবৃন্দ

 

মালদায় নীলকণ্ঠ দিবস উপলক্ষ্যে চিকিৎসা শিবির

সংবাদদাতা
নিজস্ব সংবাদদাতা
সময়

মালদা ঃ গত ১২ই ফেব্রুয়ারী ‘নীলকন্ঠ দিবস’-এ মালদা জেলার রতুয়া ব্লকের আডগামা গ্রামে আনন্দমার্গ প্রচারক সংঘের উদ্যোগে একটি চিকিৎসা শিবিরের আয়োজন করা হয়৷ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক অজিত মণ্ডল মহোদয়ের পরিচালনায় প্রায় ১৭০ জন দুঃস্থ রোগীর চিকিৎসা ও ঔষধ প্রদান করা হয়৷ রতুয়া মণিপুর আনন্দমার্গ স্কুলের প্রিন্সিপ্যাল অবধূতিকা আনন্দমহাবিদ্যা আচার্যা এই শিবিরে পৌরোহিত্য করেন৷ শ্রী প্রভাস মণ্ডল ও শ্রী সঞ্জয় মণ্ডল  এই শিবির পরিচালনায় সহায়তা করেন৷ উপস্থিত স্থানীয় অধিবাসীগণের মধ্যে আনন্দমার্গ ও নীলকন্ঠ দিবসের বিষয়ে আলোচনা করেন অবধূতিকা আনন্দমহাবিদ্যা আচার্যা ও শ্রী অজিত মণ্ডল৷ স্থানীয় জনগণের মধ্যে আনন্দমার্গ সম্পর্কে যথেষ্ট উৎসাহ ও উদ্দীপনা লক্ষ্য করা যায়৷

কৃষ্ণনগর স্যাঁকড়াপারা আনন্দমার্গ স্কুলের শীতকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা

সংবাদদাতা
নিজস্ব সংবাদদাতা
সময়

কৃষ্ণনগর, ৮ ফেব্রুয়ারী ঃ বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষা ব্রহ্মচারিণী সমর্পিতা আচার্যার উদ্যোগে ও বিদ্যালয়ের শিক্ষিকাবৃন্দ, অভিভাবক ও স্থানীয় আনন্দমার্গের সদস্য-সদস্যাবৃন্দের অকুণ্ঠ সহযোগিতায় বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ৮-২-২০১৯ সকাল ১১টায় ৭০ জন ছাত্রছাত্রাকে ৮টি দলে ভাগ করে মোট ১৭টি ক্রীড়া প্রতিযোগিতা পরিচালনা করেন বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা ও স্থানীয় আনন্দমার্গের সদস্য৷ পতাকা উত্তোলন করে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন আনন্দমার্গের কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি ‘উইমেস্ ওয়েলফেয়ার বিভাগের সেক্রেটারী অবধূতিকা আনন্দবীতরাগা আচার্যা৷ প্রধান অতিথি প্রাক্তন কমিশনার, কৃষ্ণনগর পৌরসভা, শ্রী অসিত কুমার সাহা, আনন্দমার্গের শিক্ষা বিষয়ের ওপরে মূল্যবান বক্তব্য রাখেন৷ তিনি বলেন আজকের এই অবক্ষয়িত সমাজে আনন্দমার্গ নতুন পথ দেখাবে৷ উপস্থিত ছিলেন ১ নং ওয়ার্ডের কমিশনার শ্রী নিতুরঞ্জন বিশ্বাস, আনন্দমার্গের সদস্য গোরাচাঁদ দত্ত, আনন্দ মণ্ডল, সনৎ মৃধা, মনোরঞ্জন বিশ্বাস, নিত্যানন্দ পাল, গোবিন্দ বিশ্বাস প্রমুখ৷ এছাড়া উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট নাগরিক শ্রীসমর মণ্ডল৷ অনুষ্ঠান শেষে বিজয়ীদের হাতে উল্লিখিত বিশিষ্ট ব্যষ্টিবর্গ পুরস্কার তুলে দেন৷ বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষা ব্রহ্মচারিণী সমর্পিতা আচার্যা সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করে

‘নেতাজীর আদর্শকে  অনুসরণ করতে হবে’

সংবাদদাতা
পি.এন.এ.
সময়

শিলচর ঃ অসমের  করিমগঞ্জ জেলার নন্দীগ্রামে নেতাজী সেবা সংঘে গত ২৩শে জানুয়ারী  নেতাজী  জয়ন্তী অনুষ্ঠানে আচার্য বিশ্বমিত্রানন্দ অবধূত ও আচার্য শুভ্রজ্যোতিষানন্দ অবধূত আমন্ত্রিত হয়েছিলেন৷ আচার্য বিশ্বমিত্রানন্দ অবধূত তাঁর ভাষণে  বলেন, নেতাজী ছিলেন একাধারে সাধক ও সৈনিক৷ সাধনার মধ্যদিয়ে  তিনি আত্মশক্তির  জাগরণ ঘটিয়েছিলেন ও সেই শক্তিতে দেশবাসীর কল্যাণে লাগিয়েছিলেন৷ আচার্য শুভ্রজোতিষানন্দ  অবধূত বলেন, আজকের  তরুণ যুবাদের  নেতাজীর  আদর্শকে সামনে রেখে এগুতে  হবে৷ যুগপৎ সাধনা ও সমাজকল্যাণকে  জীবনের  আদর্শ হিসেবে গ্রহণ  করতে হবে৷ আর এটাই হবে নেতাজীর প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপনের  প্রকৃষ্ট উপায়৷

দুমকায় আনন্দমার্গের সেমিনার

সংবাদদাতা
নিজস্ব সংবাদদাতা
সময়

গত ৮,৯,১০ফেব্রুয়ারী  দুমকাতে আনন্দমার্গের সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়৷  এটি হ’ল  হুগলি, হাওড়া, বর্ধমান ও দুমকা ডায়োসিসের  আনন্দমার্গীদের জন্যে ফার্ষ্ট ডায়োসিস স্তরের সেমিনার৷ এই  সমস্ত এলাকা থেকে দেড় শতাধিক  সক্রিয় আনন্দমার্গী এই সেমিনারে  যোগ দিয়েছিলেন৷

এতে ‘যোগ, তন্ত্র ও ভক্তিতত্ত্ব’, ‘আনন্দমার্গ এক বিপ্লব’, ‘বিশ্বায়ন’---এই বিষয়গুলির ওপর আলোচনা করেন আচার্য রবীশানন্দ অবধূত৷ ‘প্রমাতত্ত্বে’র-ওপর আলোকপাত করেন আচার্য তথাগতাননন্দ  অবধূত৷ এছাড়া প্রত্যহ পাঞ্চজন্য, অখণ্ড কীর্ত্তন, মিলিত সাধনা, প্রভাত ফেরী প্রভৃতির মাধ্যমে  সেমিনারে এক সুন্দর আধ্যাত্মিক পরিবেশের  সৃষ্টি হয়েছিল৷ 

নীলকন্ঠ দিবস পালন

সংবাদদাতা
নিজস্ব সংবাদদাতা
সময়

গত ১২ই ফেব্রুয়ারী কলকাতায় আনন্দমার্গের কেন্দ্রীয় আশ্রমে মহাসমারোহে  ‘নীলকন্ঠ দিবস’ পালিত হয়৷ এইদিন পাপশক্তির  ষড়যন্ত্রকে  ব্যর্থ করে মার্গগুরুদেব স্বীয় ঐশী শক্তির সাহায্যে মারাত্মক  বিষকে আত্মস্থ করেছিলেন৷ তাই এই দিনটিকে আনন্দমার্গীরা ‘নীলকন্ঠ দিবস’ হিসেবে পালন করেন৷

এই উপলক্ষ্যে এদিন আনন্দমার্গীরা আনন্দমার্গের কেন্দ্রীয় আশ্রমে মিলিত  হয়ে অখণ্ড কীর্ত্তনে  যোগ দেন৷ অখণ্ড কীর্ত্তন, মিলিত সাধনা ও স্বাধ্যায়ের পর আচার্য সর্বেশ্বরানন্দ অবধূত ‘নীলকন্ঠ দিবসে’র  তাৎপর্য ব্যাখ্যা করেন৷ কীভাবে সরকার সিবিআইকে দিয়ে  মিথ্যা অভিযোগে শ্রীশ্রীআনন্দমূর্ত্তিজী কারারুদ্ধ  করে, কীভাবে সরকার এদিন তাঁকে বিষ প্রয়োগ করে হত্যা করার ষড়যন্ত্র করে ও কীভাবে ঐশী শক্তি  বলে তিনি সেই মারাত্মক বিষকে আত্মস্থ করে’ পাপশক্তি ষড়যন্ত্রকে  ব্যর্থ করেছিলেন--- আচার্য সর্বেশ্বরানন্দ তাঁর বিস্তারিত বিবরণ দেন৷ অতঃপর তিনি বলেন আজ নীলকন্ঠ দিবসে আমাদের  নূতন করে শপথ  গ্রহণ করতে হবে যে, শ্রীশ্রী আনন্দমূর্ত্তিজী যে বিশ্বব্যাপী শোষণমুক্ত সর্বাঙ্গসুন্দর  সমাজরচনার  জন্যে অবর্ণণীয় কষ্টবরণ করেছেন, আমরা মার্গগুরুদেবের  সেই আদর্শকে বাস্তবায়িত করবই করব৷

 

দুমকায় আনন্দমার্গের সেমিনার

নিজস্ব সংবাদদাতা ঃ গত ৮,৯,১০ফেব্রুয়ারী  দুমকাতে আনন্দমার্গের সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়৷  এটি হ’ল  হুগলি, হাওড়া, বর্ধমান ও দুমকা ডায়োসিসের  আনন্দমার্গীদের জন্যে ফার্ষ্ট ডায়োসিস স্তরের সেমিনার৷ এই  সমস্ত এলাকা থেকে দেড় শতাধিক  সক্রিয় আনন্দমার্গী এই সেমিনারে  যোগ দিয়েছিলেন৷

এতে ‘যোগ, তন্ত্র ও ভক্তিতত্ত্ব’, ‘আনন্দমার্গ এক বিপ্লব’, ‘বিশ্বায়ন’---এই বিষয়গুলির ওপর আলোচনা করেন আচার্য রবীশানন্দ অবধূত৷ ‘প্রমাতত্ত্বে’র-ওপর আলোকপাত করেন আচার্য তথাগতাননন্দ  অবধূত৷ এছাড়া প্রত্যহ পাঞ্চজন্য, অখণ্ড কীর্ত্তন, মিলিত সাধনা, প্রভাত ফেরী প্রভৃতির মাধ্যমে  সেমিনারে এক সুন্দর আধ্যাত্মিক পরিবেশের  সৃষ্টি হয়েছিল৷ 

 

‘নেতাজীর আদর্শকে  অনুসরণ করতে হবে’

পি.এন.এ,শিলচর ঃ অসমের  করিমগঞ্জ জেলার নন্দীগ্রামে নেতাজী সেবা সংঘে গত ২৩শে জানুয়ারী  নেতাজী  জয়ন্তী অনুষ্ঠানে আচার্য বিশ্বমিত্রানন্দ অবধূত ও আচার্য শুভ্রজ্যোতিষানন্দ অবধূত আমন্ত্রিত হয়েছিলেন৷ আচার্য বিশ্বমিত্রানন্দ অবধূত তাঁর ভাষণে  বলেন, নেতাজী ছিলেন একাধারে সাধক ও সৈনিক৷ সাধনার মধ্যদিয়ে  তিনি আত্মশক্তির  জাগরণ ঘটিয়েছিলেন ও সেই শক্তিতে দেশবাসীর কল্যাণে লাগিয়েছিলেন৷ আচার্য শুভ্রজোতিষানন্দ  অবধূত বলেন, আজকের  তরুণ যুবাদের  নেতাজীর  আদর্শকে সামনে রেখে এগুতে  হবে৷ যুগপৎ সাধনা ও সমাজকল্যাণকে  জীবনের  আদর্শ হিসেবে গ্রহণ  করতে হবে৷ আর এটাই হবে নেতাজীর প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপনের  প্রকৃষ্ট উপায়৷

 

কৃষ্ণনগর স্যাঁকড়াপারা আনন্দমার্গ স্কুলের শীতকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা

নিজস্ব সংবাদদাতা, কৃষ্ণনগর, ৮ ফেব্রুয়ারী ঃ বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষা ব্রহ্মচারিণী সমর্পিতা আচার্যার উদ্যোগে ও বিদ্যালয়ের শিক্ষিকাবৃন্দ, অভিভাবক ও স্থানীয় আনন্দমার্গের সদস্য-সদস্যাবৃন্দের অকুণ্ঠ সহযোগিতায় বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ৮-২-২০১৯ সকাল ১১টায় ৭০ জন ছাত্রছাত্রাকে ৮টি দলে ভাগ করে মোট ১৭টি ক্রীড়া প্রতিযোগিতা পরিচালনা করেন বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা ও স্থানীয় আনন্দমার্গের সদস্য৷ পতাকা উত্তোলন করে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন আনন্দমার্গের কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি ‘উইমেস্ ওয়েলফেয়ার বিভাগের সেক্রেটারী অবধূতিকা আনন্দবীতরাগা আচার্যা৷ প্রধান অতিথি প্রাক্তন কমিশনার, কৃষ্ণনগর পৌরসভা, শ্রী অসিত কুমার সাহা, আনন্দমার্গের শিক্ষা বিষয়ের ওপরে মূল্যবান বক্তব্য রাখেন৷ তিনি বলেন আজকের এই অবক্ষয়িত সমাজে আনন্দমার্গ নতুন পথ দেখাবে৷ উপস্থিত ছিলেন ১ নং ওয়ার্ডের কমিশনার শ্রী নিতুরঞ্জন বিশ্বাস, আনন্দমার্গের সদস্য গোরাচাঁদ দত্ত, আনন্দ মণ্ডল, সনৎ মৃধা, মনোরঞ্জন বিশ্বাস, নিত্যানন্দ পাল, গোবিন্দ বিশ্বাস প্রমুখ৷ এছাড়া উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট নাগরিক শ্রীসমর মণ্ডল৷ অনুষ্ঠান শেষে বিজয়ীদের হাতে উল্লিখিত বিশিষ্ট ব্যষ্টিবর্গ পুরস্কার তুলে দেন৷ বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষা ব্রহ্মচারিণী সমর্পিতা আচার্যা সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করে

 

মালদায় নীলকণ্ঠ দিবস উপলক্ষ্যে চিকিৎসা শিবির

নিজস্ব সংবাদদাতা, মালদা ঃ গত ১২ই ফেব্রুয়ারী ‘নীলকন্ঠ দিবস’-এ মালদা জেলার রতুয়া ব্লকের আডগামা গ্রামে আনন্দমার্গ প্রচারক সংঘের উদ্যোগে একটি চিকিৎসা শিবিরের আয়োজন করা হয়৷ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক অজিত মণ্ডল মহোদয়ের পরিচালনায় প্রায় ১৭০ জন দুঃস্থ রোগীর চিকিৎসা ও ঔষধ প্রদান করা হয়৷ রতুয়া মণিপুর আনন্দমার্গ স্কুলের প্রিন্সিপ্যাল অবধূতিকা আনন্দমহাবিদ্যা আচার্যা এই শিবিরে পৌরোহিত্য করেন৷ শ্রী প্রভাস মণ্ডল ও শ্রী সঞ্জয় মণ্ডল  এই শিবির পরিচালনায় সহায়তা করেন৷ উপস্থিত স্থানীয় অধিবাসীগণের মধ্যে আনন্দমার্গ ও নীলকন্ঠ দিবসের বিষয়ে আলোচনা করেন অবধূতিকা আনন্দমহাবিদ্যা আচার্যা ও শ্রী অজিত মণ্ডল৷ স্থানীয় জনগণের মধ্যে আনন্দমার্গ সম্পর্কে যথেষ্ট উৎসাহ ও উদ্দীপনা লক্ষ্য করা যায়৷

মুর্শিদাবাদে মার্গীয় বিধিতে বৈপ্লবিক বিবাহ

সংবাদদাতা
নিজস্ব সংবাদদাতা
সময়

গত সতেরই জানুয়ারী মুর্শিদাবাদের বহরমপুরে আনন্দমার্গীয় বিধিতে এক বৈপ্লবিক বিবাহ অনুষ্ঠিত হয়৷ বহরমপুরের সুতীর মাঠে অনুষ্ঠিত এই বিবাহনুষ্ঠানে পাত্র ছিলেন কান্দী নিবাসী শ্রী অজিত কুমার ঘোষের পুত্র শ্রীমান অংশুমান ঘোষ ও পাত্রী বহরমপুর নিবাসী প্রয়াত জগন্নাথ ঘোষ ও শ্রীমতী অর্চনা ঘোষের কন্যা রিনি ঘোষ৷ এই অনুষ্ঠানে পৌরোহিত্য করেন পাত্রপক্ষে আচার্য প্রসূনানন্দ অবধূত ও পাত্রীপক্ষে অবধূতিকা আনন্দ তপারতি আচার্যা৷ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কৃষ্ণস্বরূপানন্দ অবধূত, আচার্য বিশ্বেশ্বরানন্দ অবধূত, আচার্য বিশ্বোত্তরানন্দ অবধূত ও প্রায় ৫০ জন আনন্দমার্গী৷ এছাড়াও পাত্র ও পাত্রীপক্ষের আত্মীয় স্বজন-বন্ধু-বান্ধব প্রায় ৬০০/৭০০ জন উপস্থিত ছিলেন৷ বিবাহের পর আনন্দমার্গের এই বৈপ্লবিক বিবাহপ্রথার বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে বক্তব্য রাখেন আচার্য প্রসূনানন্দ অবধূত৷

মোহনপুরে মার্গীয় বিধিতে অন্নপ্রাশন

সংবাদদাতা
নিজস্ব সংবাদদাতা
সময়

মেদিনীপুর জেলার মোহনপুর ব্লক শহরের ওপর গৌরমোহন লজ-এ সাড়ম্বরে পালিত হ’ল বিশিষ্ট আনন্দমার্গী শ্রী অনুপ কুমার পাল ও শ্রীমতী জ্যোৎস্না পালের পুত্র শ্রী সৌমিত্র পাল-এর একমাত্র নবজাতক পুত্রসন্তানের অন্নপ্রাশন ও নামকরণ অনুষ্ঠান৷ উক্ত অনুষ্ঠানে পৌরোহিত্য করেন আনন্দমার্গের প্রবীণ সন্ন্যাসী আচার্য কাশীশ্বরানন্দ অবধূত৷ এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন আচার্য কীর্ত্তিনাথানন্দ অবধূত সহ জেলার বিশিষ্ট আনন্দমার্গীগণ৷ স্থানীয় প্রায় দুই শতাধিক ব্যষ্টি আমন্ত্রিত ছিলেন এই অনুষ্ঠানে৷

যথারীতি প্রভাত সঙ্গীত বাবা নাম কেবলম্’ কীর্ত্তন ও সমবেত সাধনার মধ্য দিয়ে শিশুর অন্নপ্রাশন ও নামকরণের অনুষ্ঠান হয়৷ অনুষ্ঠানে শিশুর নাম রাখা হয় ‘নির্মাল্য’৷

আনন্দমার্গের আদর্শ ও অন্নপ্রাশনের তাৎপর্য সম্পর্কে বক্তব্য রাখেন আচার্য কাশীশ্বরানন্দ অবধূত৷ উপস্থিত সকলে শিশুকে আশীর্বাদ করেন৷ প্রীতিভোজের পর অনুষ্ঠান সমাপ্ত হয়৷

জঙ্গলমহল উৎসবে প্রভাতসঙ্গীত অনুষ্ঠান

সংবাদদাতা
নিজস্ব সংবাদদাতা
সময়

পুরুলিয়া ঃ পুরুলিয়া জেলার জয়পুর ব্লক ডেভেলপমেন্ট অফিস থেকে সম্প্রতি জঙ্গলমহল উৎসবের আয়োজন করা হয়৷ এই উৎসবে আনন্দনগরের আনন্দমার্গ প্রচারক সংঘকে আমন্ত্রণ জানানো হয়৷ তাতে আনন্দমার্গের সাংসৃকতিক প্রকোষ্ঠ ‘রাওয়া’র (রেণেশাঁ আর্টিষ্টস্ এ্যাণ্ড রাইটার্স এ্যাসোশিয়েসন) শিল্পীরা ২টি প্রভাত সঙ্গীত ও ৪টি প্রভাত সঙ্গীত অবলম্বনে নৃত্য প্রদর্শন করেন৷ সমস্ত দর্শকরা এই অনুষ্ঠানের ভূয়সী প্রশংসা করেন৷

বিদ্যাদিবস

সংবাদদাতা
নিজস্ব সংবাদদাতা
সময়

গত ১০ই ফেব্রুয়ারী রামচন্দ্রপুর আনন্দমার্গ স্কুলে অনুষ্ঠিত হয় ‘বিদ্যাদিবস’৷ এই উপলক্ষ্যে মিলিত প্রার্থনা, ধ্যান, প্রভাত সঙ্গীত, ও নৃত্য অনুষ্ঠিত হয়৷

এরপর প্রসাদ বিতরণ করা হয়৷ ‘সা বিদ্যা যা বিমুক্তয়ে’ বিষয়ে বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ আচার্য কল্পনাথানন্দ অবধূত৷ তারই উদ্যোগে ও ব্যবস্থাপনায় সব অনুষ্ঠানগুলি সাফল্যমণ্ডিত হয়েছিল৷