বিশ্ব পরিবেশ দিবসে আবেদন

‘‘মানুষ যেন মানুষের তরে সবকিছু করে যায়৷

               একথাও যেন মনে রাখে পশুপাখী তার পর নয়

নিজস্ব সংবাদদাতা

বাঙলাদেশে আনন্দমার্গের ধর্মমহাসম্মেলন

গত ১৯, ২০, ২১শে এপ্রিল, ২০১৯ বাঙর্লদেশের দিনাজপুর জেলার অন্তর্গত মুকুন্দপুরে সি.ভি.এ ট্রেনিং সেণ্টারে আনন্দমার্গের ধর্মমহাসম্মেলন অনুষ্ঠিত হ’ল৷ এটি হ’ল বাঙলাদেশের বার্ষিক ধর্ম মহাসম্মেলন৷ এই… নিজস্ব সংবাদদাতা

সপ্তদশ দধীচি লহ প্রণাম  বিজন সেতুতে সপ্তদশ দধীচির উদ্দেশ্যে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন, মৌন মিছিল ও প্রতিবাদ সভা

সিপিএমের হার্মাদ বাহিনীর দ্বারা সংঘটিত এই পৈশাচিক হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে আয়োজিত মৌন মিছিল ও তৎপরে বিজন সেতুর ওপরে প্রতিবাদ-সভায় সামিল হন কলকাতার বহু বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী সহ হাজার হাজার আনন্দমার্গী ও… নিজস্ব সংবাদদাতা

জম্মু-কশ্মীরে জঙ্গী হামলায় নিহত ৪০ জওয়ান

গত ১৪ই ফেব্রুয়ারী জম্মু-কশ্মীরের পুলওয়ামা সি.আর.পি.এফ. কনভয়ে বিস্ফোরক ভর্তি একটি গাড়ী নিয়ে জঙ্গীরা ঢুকে পড়ে’ ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটায়৷ ফলে,এই সংবাদ লেখা পর্যন্ত, অন্ততঃ ৪০ জন জওয়ান নিহত হয়েছেন৷ আহত প্রায়… পি.এন.এ.

বইমেলায় আনন্দমার্গের পুস্তক সম্পর্কে ক্রমবর্ধমান আগ্রহ

এবারে সল্টলেক সেন্ট্রাল পার্কে ৩১শে জানুয়ারী থেকে ১১ই ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত  আয়োজিত  বইমেলায়  আনন্দমার্গ পাবলিকেশনে বেশ ভিড় হয়েছিল৷  বলা বাহুল্য, এখানে মার্গগুরু শ্রীশ্রীআনন্দমূর্ত্তি রচিত ‘আনন্দমার্গ… নিজস্ব সংবাদদাতা

ডিমডিহা জলবন্ধ (Dam)

আনন্দ নগরে ডিমডিহা ও ঘাগরা গ্রামদ্বয়ের মধ্যবর্ত্তী স্থানে গুয়াই নামে পাহাড়ী নদী আছে৷ গত ৮ই ডিসেম্বর সকাল সাড়ে দশটায় প্রভাত সঙীত, বাবানাম কীর্ত্তন ও মিলিত সাধনার পর এই জলবন্ধের অনুষ্ঠানিক উদ্বোধন… নিজস্ব সংবাদদাতা

মোদি কি দেশকে স্বৈরাচারী একনায়কতন্ত্রের পথে দেশকে নিয়ে যেতে চান?

মনোজ দেব

দ্বিতীয়বার বিপুল সংখ্যাধিক্যে ক্ষমতায় বসে প্রধানমন্ত্রী আবার আবাজ তুলেছেন এক জাতি, এক নির্বাচন৷ একটা কথা জেনে রাখা ভাল---বিপুল সংখ্যা হলেও বিপুল জনসমর্থন ও জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত রায় এই নির্বাচনের ফল নয়৷ দীর্ঘকালীন ভোট, বিপুল পরিমাণ অর্থের ছড়াছড়ি, তারপর নির্বাচন কমিশনের ভেতর থেকেই প্রধান নির্বাচন কমিশনারের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ উঠেছে৷ প্রযুক্তিগত কারচুপিরও অভিযোগ উঠছে৷ এই নিয়ে বিরোধীরা নির্বাচন কমিশন ও সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল৷ কিন্তু কোনও পক্ষই বিরোধীদের কথায় কর্ণপাত করেননি৷ মোদি জমানায় সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ এনেছিলেন তার সহ বিচারপতিরা৷

যোগ একদিবসের জন্যে নয়   সমগ্র জীবনের সুদৃঢ় ভিত্তি

মোহন সরকার

যোগ একটা দিবসের জন্যে নয়৷ যোগ সমস্ত দিবসের জন্যে---যোগ সারা জীবনের জন্যে৷

যোগ কী?

 জীবনের অপূর্ণতা থেকে আনবার জন্যে জীবনে যা করণীয় তারই শিক্ষার নাম যোগ৷ একটা চারাগাছকে  বিজ্ঞান সম্মতভাবে বলি পরিচর্যা করা অর্থাৎ ঠিক নিয়ম মেনে জল, সার দেওয়া, বেড়া দেওয়া, ইত্যাদির মাধ্যমে চারাগাছটিকে বিকশিত করে পত্রে ফুল ফলে ভরিয়ে তোলার বিজ্ঞানই হ’ল যোগ৷

‘যোগা’ নয়, ‘যোগ’

রাজ্যের শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষায় সরকার ও জনগণকে  বিশেষভাবে সচেষ্ট হতে হবে

মুশাফির

আজ ভারতের মধ্যে সবচেয়ে শোষিত, নির্যাতিত, বঞ্চিত ও লাঞ্ছিত রাজ্য হল, এই ভারতের পূর্বদিকে অবস্থিত পশ্চিমবাংলা৷ কেন্দ্র চিরকালই এই রাজ্যকে শোষিত ও বঞ্চিত করে আসছে৷ যেহেতু পশ্চিমবাঙলা প্রায় ৪১ বছর বিরোধীদলের শাসনে,  তাই কেন্দ্র বিমাতৃসুলভ আচরণ করে রাজ্যকে  প্রাপ্য অর্থ থেকে বঞ্চিত করে আসছে৷  বিশেষ করে দীর্ঘ ৩৪ বছর বাম শাসনের অবসানের পর যে তৃণমূল কংগ্রেস শাসনে এসেছে, সেই রাজ্য সরকারকে বিজেপি নানা ভাবে আর্থিক দিক থেকে বঞ্চিত করে আসছে৷ এই কারণে  তৃণমূল কঠোর আর্থিক সংকটের মধ্য দিয়ে চলছে, সেটা সারা পশ্চিমবাঙলার জনগণ উপলদ্ধি করেন৷ দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে শিক্ষক, শিক্ষাক্ষেত্রের অন্যান্য  কর্মচারী তথা সরকা

নির্বাচন পরবর্তী সমীক্ষা ঃ কী পেল বাঙলা ও বাঙালী

সুকুমার সরকার

উনিশের লোকসভা নির্বাচন শেষ হয়ে গেল৷  প্রচণ্ড মোদি ঝড়ে আঞ্চলিক  দলগুলি সহ বৃহত্তর বিরোধী দলগুলিও খড় কুটোর মতো উড়ে গেছে৷ বাঙলা ও বাঙালির ভাগ্যাকাশেও নেমে এসেছে এক পরিবর্তনের ইঙ্গিত ! এই পরিবর্তনের ইঙ্গিত বাঙলা ও বাঙালির জন্যে কতটা ইতিবাচক ও কতটা নেতিবাচক তার হিসেব যদি বাঙালিরা না করে ভবিষ্যতে পস্তাতে হবে৷  

যোগদিবস ও যোগসাধনা

জ্যোতিবিকাশ সিন্হা

আধ্যাত্মিকতার ঐতিহ্যমন্ডিত মৈত্রী, সম্প্রীতি, শান্তি ও মিলনের ক্ষেত্র আমাদের দেশ এই ভারতবর্ষ যোগসাধনার পীঠস্থান হিসেবে সমগ্র বিশ্বে  স্বীকৃত ও বন্দিত৷ অতিপ্রাচীন কাল থেকেই ভারতবর্ষের মুনিঋষিগণ  বহু সাধনার মাধ্যমে মানুষের শারীরিক,  মানসিক ও  আধ্যাত্মিক স্তরের সর্বাত্মক উন্নতিকল্পে নানাবিধ প্রক্রিয়া-পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছেন ও গুরু-শিষ্য পরম্পরায় সেই শিক্ষা কালক্রমে সাধারণ মানুষের কল্যাণে প্রসারিত হয়েছে৷ সুদীর্ঘ সাধনার অভিজ্ঞতায় তাঁরা উপলব্ধি করেছিলেন যে আধ্যাত্মিক সাধনার পথে অগ্রগতি আনতে হলে শারীরিক সুস্থতা ও মানসিক স্বচ্ছতা একান্ত প্রয়োজন৷ মানুষের শরীরে যে সকল গ্রন্থি-উপগ্রন্থি রয়েছে সেগুলি থেক

বহু ভাষাভাষী রাষ্ট্র ভারত যেখানে বহুত্ববাদকে মান্যতা দিতে হবে সেখানে শিক্ষাক্ষেত্রে হিন্দী ভাষা নিয়ে বাড়াবাড়িটা বিসদৃশ

প্রভাত খাঁ

দ্বিতীয়বার কেন্দ্রে সরকার গঠন করেছে বিজেপি তথা এন.ডি.এ৷ সরকারের প্রথম ও প্রধান কাজ হ’ল কীভাবে সারা ভারতে যে ভয়ঙ্কর বেকার সমস্যায় কোটি কোটি শিক্ষিত, অর্ধশিক্ষিত যুবক-যুবতী বেকার হয়ে জীবন যন্ত্রণা ভোগ করছেন তার কিছুটা সমাধানের চেষ্টা করা৷ তা না করে সেই হিন্দীভাষাকে কীভাবে শিক্ষা ব্যবস্থার মাধ্যমে কচি কচি কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে প্রবেশ করানো যায় তার জন্য পাঠ্যবিষয়ে হিন্দীকে বাধ্যতামূলক করতে কেন্দ্র একতরফা সিদ্ধান্ত নিচ্ছে৷ এ ব্যাপারে কস্তুরীরঙ্গনের নেতৃত্বাধীন কমিটির তৈরী জাতীয় শিক্ষানীতির খসড়া পেশ করার প্রস্তাব করা হয় লোকসভায়৷ ষষ্ঠ, সপ্তম ও অষ্টম শ্রেণীতে মাতৃভাষা, ইংরেজী ও হিন্দী ভাষাকে বাধ্যত

বাংলা ও বাঙালীর স্বার্থরক্ষার তাগিদে আপামর বাঙালীকেই ঐক্যবদ্ধ হতে হবে

জ্যোতিবিকাশ সিন্হা

সুজলা, সুফলা, শস্যশ্যামলা বাংলার মাটি, জল, পরিবেশ, জলবায়ু, প্রাকৃতিক বৈচিত্র্য বাঙালী জাতির বৈশিষ্ট্যে এক অভিনব স্বকীয়তা প্রদান করেছে৷ বাঙালী একাধারে অতি ভাবপ্রবণ, সহজ-সরল জীবনে অভ্যস্ত,সহনশীল, অতিথি বৎসল---আবার প্রয়োজনে এই বাঙালীই অস্ত্র হাতে অত্যাচারীর বিরুদ্ধে ভীষণ ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করতেও সমান দক্ষ৷ বাঙালির ঐতিহ্য আধ্যাত্মিকতা, নৈতিকতা, মিলন,মৈত্রী ও ত্যাগের মহিমায় সমুজ্বল৷ ধর্ম, সাহিত্য, সংস্কৃতি, জ্ঞান-বিজ্ঞান, স্বদেশপ্রেম, সর্বক্ষেত্রেই বাঙালীর অবদান পৃথিবীর ইতিহাসে এক বিশেষ স্থান অধিকার করেছে৷ এই বাংলাতেই জন্মেছেন মহাপ্রভু চৈতন্যদেব, রামকৃষ্ণ পরমহংস, স্বামী বিবেকানন্দ, ঋষি অরবিন্দ,ঋষি

বাঙালীর ভবিষ্যৎ কোন্ পথে

মনোজ দেব

মানুষ আজ অমানুষে পরিণত হচ্ছে৷ হিংসা, বিদ্বেষ, স্বার্থ লোভ মানুষকে বিবর্তনের বিপরীত পথে নিয়ে চলেছে৷  রাজনীতির রঙ্গমঞ্চে কেউ তৃণমূল, কেউ বিজেপি নানা নামে পরিচিত৷ মানুষের পরিচয় সে ভুলে যায়, মানব ধর্মের অনুশীলন সে করে না৷ দলীয় স্বার্থরক্ষা করা আর অর্থ উপার্জন তার একমাত্র ধ্যান-জ্ঞান৷ ক্ষমতার দখল নিতে সে উন্মত্ত, উন্মাদ৷ তাই তো এত খুন, এত রক্ত!কেউ একবারও ভাবে না কে কাকে মারছে? কে কার রক্তে হাত রাঙাচ্ছে?

‘‘গুরুকৃপা, মোক্ষপ্রাপ্তি ও মাইক্রোবাইটাম’’

শ্রী সমরেন্দ্রনাথ ভৌমিক

কোন মানুষ যদি তার মনকে সূচাগ্র করতে চায়  তবে ওই মানুষটিকে  গুরুচক্রে মনকে রেখে ইষ্টের  ধ্যান করতে হবে৷ কিন্তু প্রশ্ণ  হ’ল গুরুচক্র কোথায় অবস্থিত  ও গুরুচক্রে মন রাখতে হবে কেন? আসলে গুরুচক্র সহস্রার চক্রের ঠিক নীচে  অবস্থিত৷ এখন, গুরুচক্র হ’ল মানব মহিমার  সর্বোচ্চ চক্র বা বিন্দু৷ মানব দেহে পরমপুরুষের  এটাই হ’ল অবস্থান  কেন্দ্র৷ তাই এই সর্বোচ্চ বিন্দুতে  মানুষ মন রেখে  ধ্যান করবে৷ মানুষ তার মনের সমস্ত শক্তিকে এই বিন্দুতে  যদি সংহত করতে  পারে তবেই  মানুষ একাগ্রতা লাভ করে ও সর্বজ্ঞ হ’য়ে উঠবে৷

মনের একাগ্রতা ও মনের ওপর নিয়ন্ত্রণ

অবধূতিকা আনন্দরসধারা আচার্যা

কথায় বলে যে যন্ত্র যত বেশী সূক্ষ্ম তার শক্তিও ততোধিক৷ মন শরীর থেকে অনেক অনেক বেশী সূক্ষ্ম, তাই তা অধিকতর শক্তিসম্পন্ন৷ সেই জন্যেই প্রত্যেকটি কাজ শরীর থেকেই শুরু করতে হয়৷