ডিমডিহা জলবন্ধ (Dam)

আনন্দ নগরে ডিমডিহা ও ঘাগরা গ্রামদ্বয়ের মধ্যবর্ত্তী স্থানে গুয়াই নামে পাহাড়ী নদী আছে৷ গত ৮ই ডিসেম্বর সকাল সাড়ে দশটায় প্রভাত সঙীত, বাবানাম কীর্ত্তন ও মিলিত সাধনার পর এই জলবন্ধের অনুষ্ঠানিক উদ্বোধন… নিজস্ব সংবাদদাতা

নববর্ষের শুভেচ্ছা

নোতুন পৃথিবীর সমস্ত কর্মী, শুভানুধ্যায়ী ও পাঠক-পাঠিকাদের আন্তর্জাতিক নববর্ষ ২০১৯-এর আগাম প্রীতি ও শুভেচ্ছা জানাই৷ নর্

নিজস্ব সংবাদদাতা

‘রাওয়া’র উদ্যোগে নৈহাটী ঐকতান মঞ্চে শ্রীশ্রীআনন্দমূর্ত্তিজী অবদানের ওপর আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

নৈহাটী ঃ ২১ নভেম্বর, ২০১৮ বুধবার সন্ধ্যায় নৈহাটীর ‘ঐকতান’  মঞ্চে বিশ্ববন্দিত মহান দার্শনিক ও কালজয়ী সঙ্গীতগুরু শ্রীপ্

নিজস্ব সংবাদদাতা

শ্রীশ্রীআনন্দমূর্ত্তিজী পার্থিব দেহের মহাপ্রয়াণ দিবসে কলকাতায় আনন্দমার্গীদের মহাসমাবেশ

২১শে অক্টোবর মহাসম্ভূতি শ্রীশ্রীআনন্দ–মূর্ত্তিজ্ পার্থিব দেহের মহাপ্রয়াণ দিবস৷ ১৯৯০ সালের ২১শে অক্টোবর বিকেল সাড়ে ৩টার সময় কলকাতাস্থিত মার্গগুরুভবন ‘মধুকোরকে’ তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন৷ পত্রিকা প্রতিনিধি

উপযুক্ত রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে মাঝেরহাটে আবার সেতুভঙ্গ

গত ৪ঠা সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার বিকেলে হঠাৎ বিকট শব্দে চারদিক কাঁপিয়ে যানবাহন নিয়ে ধসে পড়ল মাঝেরহাট সেতু৷ ব্রীজের ওপর তখন ছিল একটি চার চাকা গাড়ী, একটি মিনিবাস ও কয়েকটি মোটর সাইকেল৷ ব্রীজের নীচেও কয়েকজন… নিজস্ব সংবাদদাতা

অবশেষে বাধ্য হয়ে জি.এস.টি.-র দিকে নজর কেন্দ্রের

মুসাফির

আজ জনগণের মনে অনেক প্রশ্ণ জমে উঠেছে কারণ গত ৫টি রাজ্য নির্বাচনে  কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের পকেটে কোন রাজ্যেরই  আশাপূরণ ফল আসেনি তাই জি.এস.টি.

আদর্শ সমাজ গড়ার নোতুন ভাবনা

সত্যসন্ধ দেব

দুর্নীতিতে সারা দেশ ছেয়ে গেছে৷ কেন্দ্রীয় সরকার থেকে রাজ্যের পঞ্চায়েৎ স্তর পর্যন্ত সর্বত্র দুর্নীতির রাজ্যপাট চলছে৷ বলা বাহুল্য, ক্ষমতার সঙ্গে দুর্নীতির যোগসাজসটা সর্বাধিক৷ কারণ, ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়েই দুর্নীতির রাজ্যপাট বিস্তারের সুবিধা৷ প্রশাসনিক ক্ষমতার সাহায্য পেলে দুর্নীতির আর ভয়–ডর কিসের?

গণতন্ত্রে যাতে মানুষের অবস্থা ফেরে সেদিকে রাজনৈতিক দলগুলির লক্ষ্য রাখাটা পবিত্র কর্ত্তব্য

প্রভাত খাঁ

 ভারত নাকি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র৷ তাহলে দীর্ঘ ৭১ বছর পর পাঁচটি রাজ্যের সাধারণ নির্বাচনে প্রায় নয় লক্ষ বোটার নোটায় বোট দিয়েছেন কি কারণে ? এর কারণটা যে কতো বড়ো এটা রাজনৈতিক দলগুলির কাছে অশনি সংকেত৷ সেটা কি সরকারগুলি ভেবে দেখেছেন?

সোশ্যাল মিডিয়ার ভালো-মন্দ 

বীরেশ্বর  মাইতি

 প্রিন্ট মিডিয়া, ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার  পাশাপাশি  সোশ্যাল  মিডিয়া  নামক  একটি  নোতুন  জগতের  সাথে  আমাদের  পরিচিতি  ঘটেছে৷  একবিংশ  শতাব্দীর  সূচনা  লগ্ণ  থেকেই  সোশ্যাল মিডিয়ার পথ চলা  শুরু৷  বর্তমান সময়ে  এর  প্রভাব  ও বিস্তার  উপেক্ষা করার  মতো নয়৷ আট  থেকে  সোশ্যাল মিডিয়ায়  পথ চলা  শুরু৷ বর্তমান  সময়ে  সব বয়সের মানুষের কাছেই  সমাদর  লাভ করেছে ফেসবুক , হোয়াটস অ্যাপ, টুইট্যার, ইন্সটাগ্রাম ইত্যাদি ৷

ছিন্নভিন্ন  মানব সমাজকে  একসূত্রে  বাঁধতে  আজ একান্ত জরুরী আধ্যাত্মিক নবজাগরণ

প্রভাত খাঁ

যে যাই বলুক  ও চিন্তা  করুক যা বাস্তব  সত্য তা হলো মানুষ  সমাজবদ্ধ প্রাণী৷ এই কারণেই  প্রাচীন ভারতবর্ষের  সমাজবেত্তাগণ ‘সংগচ্ছধবং’ মন্ত্রকে  চলার পথে  ধ্রুবতারা বলেই  মান্যতা দিয়েছেন৷

প্রাউটের প্রকরণ ও প্রস্তাবনা

ড. দিলীপ হালদার, (অর্থনীতি বিভাগের প্রাক্তন প্রধান, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়)

প্রোগ্রেসিব ইয়ূটিলাইজেশন্ থিওরি Progressive Utilization Theory) কথাটাকেই সংক্ষেপে প্রাউট(PROUT) বলা হয়৷ প্রাউট প্রভাতরঞ্জন সরকারের একটি মৌলিক আর্থ-সামাজিক তত্ত্ব৷ বাংলায় প্রাউটকে তিনি প্রগতিশীল উপযোগ তত্ত্ব বলেছেন৷ এর উদ্দেশ্য হ’ল মানুষের জাগতিক দুঃখ-কষ্ট লাঘব করে পরমার্থ লাভের সন্ধান দেওয়া৷Progressive-এরPRO, Utilization-এরU ওTheory-রT এই তিনটি অংশ মিলে প্রাউট কথাটার সৃষ্টি৷ প্রতিটি অংশেরই আলাদা-আলাদা মানে আছে৷

বাঙলা  ভেঙ্গে  অসম

একর্ষি

অসম রাজ্যের  সিংহভাগ  বৃহত্তর  সাবেক বাঙলারই  খন্ডিত  অংশ৷  আজও  বাঙালীরাই  অসমের  সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠী৷ ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ  ও তার বাঁয়া  হিন্দী সাম্রাজ্যবাদ  ইতিহাসকে  বিকৃত  করে ভুল তথ্য  দিয়ে বাঙলা  থেকে  কাটা অসমের  ভূমিপুত্র  বাঙালীদেরই  গায়ে  বিদেশী অনুপ্রবেশকারী  দখলদার  লেবেল  সেঁটে  দিয়েছে,  ডি-ভোটার বানিয়েছে৷  এন.আর.সি ইস্যু তৈরী  করে বাঙালীদের  রাতের ঘুম  কেড়ে  নিয়েছে৷ বিপন্নতা বাঙালীদের গ্রাস  করেছে৷ অনিশ্চিত  ভবিষ্যতের  আতঙ্কে চলছে  আত্মহত্যা, চলছে  খুন , ধর্ষণ,  অপহরণ,  ‘বাঙালী খেদানো’রহুমকি৷ জঙ্গী  অহোমরা  পাঁচ  নিরীহ নিরাপরাধ  অসহায়  বাঙালীকে  কুকুর -ছাগলের  মতো   গুলি  ক

প্রাউটের কৃষিনীতি

আচার্য সত্যশিবানন্দ অবধূ্ত

কৃষি অর্থনীতির ভিত্তি৷ কৃষি গোটা সমাজেরও ভিত্তি৷ একটা বহুতল বাড়ীর ভিত্তি যদি দুর্বল হয়, তাহলে তা ভেঙ্গে পড়ে৷ তেমনি কৃষি ব্যবস্থা ত্রুটিপূর্ণ হলে সমগ্র সমাজের বির্পযয় দেখা দেবে৷ বর্তমানে ঠিক হচ্ছেও তাই৷ এ অবস্থায় উচিত কৃষিকে সুদৃঢ় ভিত্তির ওপর দাঁড় করানো৷ বলা হয়, That which is wrong in principle, must be wrong in detail.

মূলনীতিতে ত্রুটি থাকলে, সমস্ত ব্যবস্থাটাই ত্রুটিপূর্ণ হয়ে যাবে ও পরিশেষে তা ধবংস ডেকে আনবে৷ তাই মূলনীতির দিকে আগে দৃষ্টি দেওয়া উচিত৷

‘ধর্ম’ নিয়ে বিভ্রান্তি দূর হোক

সত্যসাধন সরকার

বর্তমানে বিজেপি ও তার সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ‘ধর্ম’কে মাধ্যম করে আপন আপন রাজনৈতিক ফায়দা তোলার প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছে৷ বিজেপি তো শুরু থেকে ধর্মের সেন্টিমেন্টকে প্রধান হাতিয়ার করে রাজনৈতিক ময়দানে লড়াই করতে নেমে বর্তমানে কেন্দ্রে ক্ষমতা দখল করেছে৷ এখন সামনের ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনী যুদ্ধে জয়লাভের জন্যেও এখন অন্যান্য সমস্ত অস্ত্র ছেড়ে ধর্মকেই একমাত্র হাতিয়ার করে নিয়েছে৷ বিজেপি’র কাছে এখন বোধ হয় আর এমন কিছু ইস্যু নেই যাতে নিজেদের কৃতিত্ব বা সাফল্য দেখিয়ে জনগণের দরবারে পুনরায় বোট ভিক্ষা করে৷ ‘আচ্ছে দিন’ও এল না, সুইসব্যাঙ্ক থেকে কালো টাকাও ফেরানো গেল না, গরীব জনসাধারণের ব্যাঙ্ক একজোট ১

রামলীলা ময়দানে কর্ষক সমাবেশ ঐতিহাসিক ঃ তাদের দাবী --- রামমন্দির নয় কৃষিঋণ মুকুব চাই

মুশাফির

ভারত কৃষিপ্রধান দেশ৷ দীর্ঘ ৭১ বছরে এদেশের কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারগুলি কৃষির উন্নতি কতটুকু করেছে? --- যার জন্যে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারগুলি গর্ববোধ করতে পারে? অদ্যাবধি উর্বর কৃষিজমির অধিকাংশ রাস্তা তৈরী করতে, শিল্প গড়তে ব্যবহার করেছে৷ বাড়ীঘর হয়েছে৷ ভূমি সংস্কার তেমন করেছে বলে মনে হয় না৷ চাষের উন্নতির জন্যে নূ্যনতম কাজগুলি কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার করেনি৷ অদ্যাবধি চাষাবাদের জন্যে যে জলটুকু প্রয়োজন তা অধিকাংশ চাষীই পায় না৷ আজও দেশের নদনদীগুলি, খাল-বিলের তেমন সংস্কার হয়নি৷ কিন্তু খরচ হয়েছে অনেক৷ গঙ্গা নাকি জাতীয় নদী?