সম্পাদকীয়

নেতা নির্বাচনে সচেতন হতে হবে

আচার্য মন্ত্রসিদ্ধানন্দ অবধূত

পৃথিবীর সমস্ত প্রাণীকুল সমান দুই ভাগে বিভক্ত৷ এককচারী ও যূথবদ্ধ৷ অতি পরিচিতদের মধ্যে  ছাগল, মুরগী জাতীয় কয়েকটি প্রাণী এককচারী৷ আবার হাতী, ভেড়ার মত কিছু প্রাণী আছে তারা যূথবদ্ধ৷ এককচারী জীবেরা সাধারণতঃ আত্মস্বার্থ কেন্দ্রিক হয়৷ সব সময় নিজের স্বার্থ রক্ষার্থেই ব্যস্ত থাকে৷ অন্য কারোর দিকে ফিরেও চায় না৷ পাশে কেউ বিপদে পড়লেও তাদের কোন ভ্রূক্ষেপ থাকে না৷ এই ধরণের জীবকে গৃহে পোষ মানাতে গেলেও তারা কখনোই পালক প্রভুর অনুগত হয় না৷ যেখানেই থাকুক যাই করুক,নিজের স্বার্থটাই  কেবল তার কাছে প্রাধান্য পায়৷

সংবিধানের অঙ্গীকার কবে প্রতিষ্ঠিত হবে!

১৯৪৭ সালে দেশ স্বাধীন হবার পর ১৯৫০ সালের ২৬শে জানুয়ারী দেশ শাসনের জন্যে ভারতের নিজস্ব সংবিধান প্রবর্ত্তিত হয়৷ তারপর সত্তরটা বছর অতিবাহিত হয়েছে৷ আজ দেশের নাগরিককে নাগরিকত্বের প্রমাণের জন্যে লাইনে দাঁড়াতে হবে৷ সীমাহীন অর্থনৈতিক বৈষম্য, সামাজিক বিভাজন ও রাজনৈতিক সংঘাতে প্রতিনিয়ত পদদলিত হচ্ছে মানুষের মৌলিক অধিকার৷ পরিতাপের বিষয় এই যে শাসক দলের প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ মদতে এগুলি হয়ে চলেছে৷ অথচ শাসক দলেরই প্রধান দায়িত্ব সংবিধানের অঙ্গীকারগুলি পালন করা৷ মৌলিক অধিকার সুরক্ষিত করা৷

পেট্রল ও ডিজেলের ক্রমাগত মূল্যবৃদ্ধি!

আচার্য মন্ত্রসিদ্ধানন্দ অবধূত

গত কয়েক মাস ধরে প্রায় প্রতিদিনই পেট্রল ও ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধি করা হচ্ছে৷ পেট্রল ও ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি মানে অন্যান্য সমস্ত নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের  মূল্যবৃদ্ধি ৷ কারণ তেলের ওপর নির্ভরশীল ট্রাক, বাস প্রভৃতি পরিবহন৷ ভোগ্যপণ্যের পরিবহন খরচ বাড়লে স্বাভাবিকভাবে তার দাম বাড়বে৷ এমনিতে করোনা সংক্রমণ ও লক্‌ডাউন বিধিনিষেধের কারণে বহু মানুষের আয়ের দরজা বন্ধ৷ তারপর পেট্রল ডিজেলের দাম দিনের পর দিন বৃদ্ধি পাওয়া ও তার সঙ্গে তাল রেখে বাড়ছে শাক-সব্জি ও অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিষের দাম৷ সাধারণ মানুষের ত্রাহি ত্রাহি রব৷

অর্থনৈতিক গণতন্ত্র ছাড়া  সার্বিক উন্নয়ন সম্ভব নয়

আচার্য মন্ত্রসিদ্ধানন্দ অবধূত

করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তেই অর্থনীতিতে আবার অশনী সংকেত৷ ২০১৮ সালেই বিশ্বের উন্নয়ন সূচকে ভারতের অবস্থান ছিল ১৩০তম স্থানে৷ ১৮৯ টি দেশের উন্নয়ন সূচক তুলনামূলকভাবে আলোচনা করতে গিয়ে এই চিত্র বেরিয়ে এসেছিল৷

অবাক হওয়ারকথা বটে! ভারতের মন্ত্রী মহোদয়রা তখন তো ভারতের উন্নয়নের ঢক্কানিনাদে তুলে দেশ মাতিয়ে তুলেছিলেন৷ দাবী করতেন, ভারত এখন বিশ্বের সবচেয়ে উন্নয়নশীল দেশগুলোর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে চলেছে৷ কিন্তু নেতাদের দাবীর সঙ্গে অর্থনীতির চিত্র সম্পূর্ণ ভিন্ন! আর একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, ২০১৮ সালের ‘হ্যাপিনেস ইনডেক্স’-এর চিত্রে গোটা বিশ্বে সুখের মাপকাঠিতে ভারতেরস্থান ১৪০ নম্বরে৷

আনন্দপূর্ণিমা নবজাগরণের দিন হোক

আচার্য মন্ত্রসিদ্ধানন্দ অবধূত

আগামী ২৬শে মে, বৈশাখী পূর্ণিমা, প্রাউট–প্রবক্তা শ্রীপ্রভাতরঞ্জন সরকার, যিনি ধর্মগুরু মহাসম্ভূতি শ্রীশ্রীআনন্দমূর্ত্তিজী নামে বিশ্ববাসীর কাছে সমধিক পরিচিত–তাঁর শুভ ১০০ তম আবির্ভাব তিথি৷ সারা বিশ্বের আনন্দমার্গীদের কাছে এই বৈশাখী পূর্ণিমা আনন্দপূর্ণিমা রূপে পরিচিত৷ এই পুণ্য তিথিতে মহাসমারোহে সর্বত্র মার্গগুরুদেবের ১০০ তম জন্ম জয়ন্তী পালন করা হবে৷ এ বছর শ্রীশ্রী আনন্দমূর্ত্তিজীর জন্ম শতবর্ষ উপলক্ষ্যে আনন্দমার্গ প্রচারক সংঘের পক্ষ থেকে মার্গের দর্শন ও আদর্শের ব্যাপক প্রচার ও প্রসারের কর্মসূচী নেওয়া হয়েছে৷

আনন্দমার্গের বিজয়রথ এগিয়ে চলেছে

আচার্য মন্ত্রসিদ্ধানন্দ অবধূত

১৯৮২ সালের ৩০শে এপ্রিল৷ গত কয়েক শতাব্দীর ইতিহাসে বোধকরি সবচেয়ে পৈশাচিকতম ঘটনা ঘটে গেল আজকের সভ্যতার পীঠভূমি কলকাতার বিজন সেতু ও বণ্ডেল গেটের মত জনাকীর্ণ এলাকায় প্রকাশ্য দিবালোকে৷ আনন্দমার্গের ১৬জন সন্ন্যাসী ও ১জন সন্ন্যাসিনীকে বর্ণনার অতীত নৃশংসতম ভাবে খুন করল তৎকালীন শাসকদল সিপিএম’এর গুণ্ডাবাহিনী৷ পুলিশ নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করল৷ স্পষ্টই বোঝা যায় এই হত্যার ষড়যন্ত্র একেবারে ওপর মহল থেকেই করা হয়েছিল৷

সামাজিক অপরাধ ঃ প্রতিরোধের পথ

আচার্য মন্ত্রসিদ্ধানন্দ অবধূত

বর্তমানে দেশজুড়ে চুরি–ছিনতাই, সমাজের ওপরের স্তর থেকে নীচু স্তর পর্যন্ত দুর্নীতি, প্রতারণা, ব্যভিচার – সর্বত্র এই যে অপরাধ প্রবণতা তা শান্তিপ্রিয় সমাজ হিতৈষী মানুষের চরম দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ কীভাবে সমাজের মানুষের এই অপরাধ প্রবণতা রোধ করা যায় এ নিয়ে অনেকে অনেক গবেষণা করছেন – কিন্তু কোনো কিছু স্থির করতে পারছেন না৷ অনেকে জিজ্ঞেস করছেন – এ ব্যাপারে আমাদের বক্তব্য কী? সেই উত্তর দিতেই এবারের সম্পাদকীয়ের অবতারণা৷

নববর্ষের অঙ্গীকার

আচার্য মন্ত্রসিদ্ধানন্দ অবধূত

 আর একটা বছর বছর অতিক্রম করে এসে গেল বাঙ্লার শুভ নববর্ষ৷ বাংলা ১৪২৭ সাল পেরিয়ে আমরা ১৪২৮–এ পড়লুম৷ নোতুন বছরে পা দিলাম৷ এমনি এক বাংলা নববর্ষের প্রবচনে প্রাউট–প্রবক্তা পরম শ্রদ্ধেয় শ্রীপ্রভাতরঞ্জন সরকার যিনি একাধারে মহান দার্শনিক, ইতিহাসবিদ্, ভাষাতত্ত্ববিদ্, শিক্ষাবিদ্, সঙ্গীতকার, যিনি মহাসম্ভূতি শ্রীশ্রীআনন্দমূর্ত্তিজী রূপে সমধিক পরিচিত, তিনি আত্মবিস্মৃত বাঙালী জাতি সম্পর্কে বলেছেন, ‘‘বাঙালী নামধেয় জনগোষ্ঠী অতীতে জীবিত ছিল, আজও জীবিত ও আমি আশা করব, ভবিষ্যতে আরও দুর্দান্তভাবে জীবিত থাকবে৷ সেই জনগোষ্ঠীকে নোতুন করে শপথ নিতে হবে–এই নোতুন বছরটা তারা কীভাবে আরও সফল করে তুলবে৷ নিজেদের অস্তিত্বকে কী

ধর্মমতের সংকীর্ণ গণ্ডী অতিক্রম করে মানবধর্মের আদর্শে উদ্ধুদ্ধ হোক মানুষ

আচার্য মন্ত্রসিদ্ধানন্দ অবধূত

বর্তমানে ধর্মের নামে নানান ধরণের গোঁড়ামী, জাত–পাতের ভেদ ও সাম্প্রদায়িক বিভেদ ও বিদ্বেষ চলছে৷ অন্ধবিশ্বাস আর কুসংস্কারের জালে জড়িয়ে আঁতুড় ঘর থেকে শশ্মানঘাট পর্যন্ত শোষনের জাল বোনা হয়েছে৷ অপ্রয়োজনীয় সামাজিক আচরণের বোঝাকে ধর্মের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ বলে বলা হচ্ছে৷ তা কিন্তু  মোটেই ঠিক নয়৷

সমাজের সামনে তিন বিপদ

আচার্য মন্ত্রসিদ্ধানন্দ অবধূত

আজ দেশের সামনে, শুধু দেশের সামনে কেন, পুরো সমাজের সামনে ৩টি বৃহত্তম বিপদ৷ একটি হ’ল পুঁজিবাদ, দুই হ’ল জড়বাদ, আর তিন হ’ল গোঁড়া সাম্প্রদায়িকতা বা যাকে বলা হয় মৌলবাদ৷