ভাষা সংক্রান্ত

ফ (১) ‘স্ফায়’ একটি বৈদিক ধাতু৷ মানে হ’ল ‘ফুলে যাওয়া’, যা থেকে আমরা ‘স্ফীতি’, ‘স্ফীত’ প্রভৃতি শব্দ পাচ্ছি৷ ‘স্ফায়’+ ‘ড’ প্রত্যয় করে পাচ্ছি ‘ফ’ শব্দটি৷ এ ক্ষেত্রে ভাবারাঢ়ার্থে ‘ফ’ ৰলতে বোঝায় ‘যা ফুলে গেছে’ কিন্তু যোগারাঢ়ার্থে ‘যা ফুলেছে বা ফুলে চলেছে’ যেমন স্ফীতোদর না ৰলে ৰলতে পারি ‘ফোদর’ (ফ+উদর)৷ যোগারাঢ়ার্থে ৰোবায় যা সংখ্যায় বেড়ে চলেছে’৷ এক অনেকে পর্যবসিত হচ্ছে৷ একটি জীবপঙ্কগত কোষ cell) একাধিক জীবপঙ্কে পর্যবসিত হয়ে চলেছে৷ তাই ‘ফ’ ৰলতে জীবপঙ্কীয় কোষকে protoplasmic cell) ৰোঝায়৷ (২) যিনি এক ছিলেন কিন্তু নিজ সংকল্পে অনেক হয়েছেন ‘ফ’ ৰলতে সেই ‘পরমব্রহ্ম-কেও ৰোঝায়৷ (৩) যা আকারে ছোট ছিল, কোন কারণে

একজ/একজন্মিন্‌ ঃ শব্দটির কয়েকটিই অর্থ হয়৷ একটি মানে হচ্ছে---‘একই পিতামাতার সন্তান’ দ্বিতীয় মানে ‘যে একলা জন্মগ্রহণ করেছে’, তৃতীয় মানে ‘শূদ্র’, চতুর্থ মানে ‘যে সকল জীব ডিম্বের মাধ্যমে জন্মগ্রহণ না করে সোজাসুজি মাতৃগর্ভ থেকে জন্মগ্রহণ করে’৷ যে সব জীব অণ্ডের মাধ্যমে জন্মগ্রহণ করে তাদের ৰলা হয় ‘দ্বিজ’৷ দাঁত দু’বার গজায়৷ তাই দাঁতের একটি নাম ‘দ্বিজ’৷ শূদ্র ৰাদে ৰাকি মানুষেরা অর্থাৎ যাদের উপনয়ন সংস্কার সেকালে হত (বিপ্র, ক্ষত্রিয়, বৈশ্য) তাদেরও ৰলা হত ‘দ্বিজ’৷ তাদের প্রথম জন্ম হত মাতৃগর্ভ হতে স্বাভাবিক মানুষের মত৷ দ্বিতীয়বার উপনয়ন সংস্কারের সময়-ধর্মীয় জন্ম ৷

এক ঃ ‘ইন্‌’ ধাতুর উত্তর কৃদর্থে ‘কন্‌’ প্রত্যয় করে ‘এক’ শব্দ নিষ্পন্ন হয়!

(১) ‘ভা’ ধাতুর অর্থ চকচক করা, জ্যোতিঃ বিকিরণ করা৷ তাই ‘ভা’ ধাতুর উত্তর ‘ড’ প্রত্যয় করে যে ‘ভ’ শব্দ পাই ভাবারূঢ়ার্থে তা হ’ল ‘যা চকচক করে’, বা ‘জ্যোতিঃ বিকিরণ করে’৷ যোগারাঢ়ার্থে ‘ভ’ ৰলতে ৰোঝবায় পরমৰ্রহ্ম৷ পরমৰ্রহ্ম জ্যোতিষ্মান ৰলেই বিশ্বের আর সকল সত্তা জ্যোতিষ্মতী৷ পরমৰ্রহ্মের আলোকেই সব কিছু আলোকময়৷

                ‘‘ন তত্র সূর্যো ভাতি ন চন্দ্রতারকম

                নেমা বিদ্যুতো ভান্তি কৃতোইয়গ্ণ্নিঃ৷৷

                তমেব ভান্তমনুভাতি সর্বং

                তস্য ভাসা সর্বমিদং বিভাতি৷’’

 (১) ণক্ষ্‌ একটি বৈদিক ধাতু যার মানে নাকের সোজা ছুটে চলা৷ এই ‘ণক্ষ্‌’ ধাতুর উত্তর ‘শতৃ’ প্রত্যয় করে পাই ‘ণক্ষৎ’ শব্দটিকে৷ ণক্ষৎ+ ত্রৈ+ ড = ণক্ষত্র৷ বর্তমানে বৈয়াকরণিক বিধি ভুলে যাওয়ায় লোকে ‘’-এর পরিবর্তে ‘’ দিয়ে লিখছে৷ গুপ্তযুগ থেকে ‘ণ’-এর পরিবর্তে ‘ন’ লিখছে৷ তবে তোমরা ইচ্ছা করলে ‘ণক্ষ’ ৰানানটিও লিখতে পারো৷ বৈয়াকরণিক বিচারে সেটাই ৰেশী শুদ্ধ একটা ত্র দিয়ে লেখা অশুদ্ধ৷ ‘ন’ দিয়ে লেখা অশুদ্ধ হলেও নিপাতনে সিদ্ধ অর্থাৎ ভুল করে ‘ন’ দিয়ে লেখার প্রথা গুপ্তযুগ থেকেই চলে আসছে৷

আলোকে যে কেটে কেটে দেয় তার জন্যে ছো+ ড করে ‘ছ’ শব্দ ব্যবহার করা যায়৷ এই ‘ছ’ শব্দের একটা অর্থ হ’ল ‘ছায়া’ যা আলোকে কেটে কেটে দেয়৷ যেহেতু ‘রাহু’ আর ‘কেতু’ এই দুটি হচ্ছে পৃথিবীরই দুই ধরণের ছায়া (ছায়া ও উপচ্ছায়া--umbra and penumbra), এই দু’টিকে ‘ছায়াগ্রহ’ বা ‘ছ’ ৰলা হয়৷ পৌরাণিক গল্প অনুযায়ী রাহু-কেতু ছিল একটি দানব৷ সে লুকিয়ে লুকিয়ে অমৃত খেয়ে ফেলেছিল৷ তাই বিষ্ণু চক্রের সাহায্যে তার মাথা কেটে দেন৷ অমৃত ভক্ষণ করায় তার মৃত্যু হ’ল না বটে, তবে ধড় ও মাথা দু’টো অংশ পৃথকভাবে বেঁচে রইল৷ মাথাটার নাম ‘রাহু’ umbra) ও ধড়টার নাম ‘কেতু’ penumbra)৷ পৌরাণিক গল্প অনুযায়ী সূর্যের স্ত্রীর নাম ‘ছায়া’৷ তার জন্যেও ‘ছ’

 (১) প্রাচীনকাল থেকেই ‘দ’ শব্দটি নানান অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে৷ বেদের একটি আখ্যায়িকায় আছে, পরস্পর সংঘর্ষরত দেবতা, দানব ও মানুষেরা একবার দেখলে, তাদের সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছে এক জ্যোচিষ্মান পুরুষ৷ নীচের দিকে তাকিয়ে তার আদি-অন্ত দেখা যায় না! ওপরের দিকে তাকিয়েও আদি-অন্ত দেখা যায় না এ যেন জ্যোতিঃর একটি ঘনীভূত রূপ৷ তারা সবাই করজোড়ে তাঁর কাছ থেকে নির্দেশ প্রাপ্তির আশায় দাঁড়িয়ে রইল৷ সেই বিরাট পুরুষ তাদের উদ্দেশে কেবল ‘দ’ শব্দটি উচ্চারণ করে অন্তর্হিত হলেন৷

লিপির ইতিকথা

লিপি বা অক্ষরের ক্ষেত্রেও এমানেশনের প্রভাব রয়েছে৷ আমরা আগেই বলেছি যে এক একটি ভাষা আনুমানিক এক হাজার বছর বাঁচে কিন্তু এক একটি লিপি বাঁচে আনুমানিক দু’ হাজার বছরের মত৷ যজুর্বেদের যুগের গোড়ার দিকে কোন লিপি ছিল না৷ শেষের দিকে অর্থাৎ আনুমানিক পাঁচ হাজার বছর আগে ভারতে লিপির আবিষ্কার হয়৷ অক্ষর আবিষ্কারের সময় ঋষিরা ভেবেছিলেন যে অ–উ–ম অর্থাৎ সৃষ্টি–স্থিতি–লয় নিয়ে এই জগৎ রয়েছে৷ কিন্তু ব্যক্ত জগৎটা হচ্ছে চৈতন্যের ওপর প্রকৃতির গুণপ্রভাবের ফল–ক্গনিটিব্ ফ্যাকাল্টির ঙ্মচৈতন্যসত্তারৰ ওপর বাইণ্ডিং ফ্যাকল্টির ঙ্মপরমা প্রকৃতিৰ আধিপত্যের ফল৷ অর্থাৎ এক্ষেত্রে পরমপুরুষ প্রকৃতির ৰন্ধনী শক্তির আওতায় এসে গেছেন৷ এই য

‘সংগঠন’ শব্দটি ভুল, হবে ‘সংঘটন’

সংস্কৃতে ‘গঠন’ বলে কোন শব্দই নেই–আছে ‘ঘটন’৷ এই ‘ঘটন’ শব্দ বিকৃত হয়ে ‘গঠন’ হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ তাই শুদ্ধভাবে লিখতে গেলে ‘সংঘটন’ লেখাই সমীচীন৷

সংঘটন শব্দটি (সম্–ঘট্ + ল্যুট) আমরা এই ‘ঘট্’ ধাতু থেকে পাচ্ছি যাকে ভুল করে আমরা ‘সংগঠন’ বলি বা লিখে থাকি৷ আবার এই ‘সংগঠন’–কে ঠিক ভেবে আমরা ‘সংগঠিত’, ‘গঠনাত্মক’, ‘সুসংগঠিত’,‘সংগঠনী শক্তি’, ‘গঠনমূলক কার্য’ প্রভৃতি শব্দগুলি অবলীলাক্রমে ব্যবহার করে থাকি৷ বুঝি না গোড়াতেই ভুল৷ ‘সংগঠন’ শব্দটি ভুল৷ আসলে ঠিক শব্দটি হ’ল ‘সংঘটন’৷ ঘটন>ঘডন>ঘ৷ একটি কবিতাতেও দেখেছিলুম–

‘‘তার উপরে মুখের গঠন অনেকটা ঠিক প্যাঁচার মতন৷’’

বাংলা বানান সংস্কার

ছাত্রী নয়, ছাত্রা

‘ছদ্’ ধাতুর অর্থ আচ্ছাদন দেওয়া৷ যে বস্তু আচ্ছাদন দেয় তা–ই ‘ছত্র’৷ গুরুর ছত্রছায়ায় যে আশ্রিত তাকে ছত্র  অণ করে ‘ছাত্র’ বলা হয়৷ ‘ছাত্র’ শব্দের স্ত্রীলিঙ্গে দু’টি রূপ রয়েছে–‘ছাত্রী’ ও ‘ছাত্রা’৷ ‘ছাত্রী’ মানে ‘ছাত্রের পত্নী’৷ তিনি নিজে পড়ুয়া হতেও পারেন, নাও হতে পারেন৷ ‘ছাত্রা’ মানে যিনি নিজে পড়ুয়া কিন্তু তিনি কারও স্ত্রী হতেও পারেন, নাও পারেন৷

সঠিক নয়, ঠিক

ঠিক একটি বিশেষণ৷ সাধারণ নিয়মে বিশেষণের আগে ‘স’–এর সংযুক্তি হয় না৷ যেমন ‘সচকিত’ ভূল তেমনি ‘সঠিক’–ও ভুল৷ ‘ঠিক’ বলাই ঠিক৷

বাংলা বানান সংস্কার

জাদুগর

‘গর’ প্রত্যয়যুক্ত ফারসী শব্দ ‘সওদাগর’ অর্থাৎ যিনি সওদা বোঝেন৷ ‘জাদুগর’ অর্থে যিনি জাদু জানেন, বোঝেন৷ এখানে বলে রাখা ভাল যে কেউ কেউ ‘জাদুগর’ বানানের পরিবর্ত্তে ‘যাদুকর’ এইরকম বানান লেখেন৷ তাঁরা শব্দটিকে ‘যাদু’ শব্দের উত্তর কৃ  অল্ করে দেখাতে চান৷ কিন্তু তা ঠিক নয়৷ ‘জাদু’ ফারসী শব্দ৷ ‘জাদু’ জানেন, বোঝেন এই অর্থে ফারসী প্রত্যয় ‘গর’ যুক্ত হয়ে হয়েছে ‘জাদুগর’৷ তাই ‘যাদুকর’ বানানের টিকি থেকে ন্যাজের ডগা পর্যন্ত ভুল৷ ‘জাদুগর’ শব্দের সংস্কৃত প্রতিশব্দ হচ্ছে ‘বাজিকর’৷ ‘কর’ সংস্কৃত প্রত্যয়৷ ফারসীতে ‘কর’ প্রত্যয় নেই৷ ‘কার’ বলে যে শব্দটি রয়েছে তা প্রত্যয় নয়৷ ‘কার’ মানে ফারসীতে ‘কাজ’৷ ‘জাদু’ শব্দের সংস্ক

বাংলায় ‘ৰ’ ও ‘ব’ প্রসঙ্গে

জ্ঞানভিক্ষু

প্রাউট–প্রবক্তা মহান দার্শনিক ঋষি শ্রীপ্রভাতরঞ্জন সরকার ভাষাতত্ত্ব ও ব্যাকরণ বিজ্ঞানের ওপরও বহু অমূল্য পুস্তক রচনা করেছেন, যা কলকাতা, ঢ়াকা, কল্যাণী প্রভৃতি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা অধ্যাপক সহ বিশিষ্ট ভাষাতাত্ত্বিক ও জ্ঞানী গুণীজনের দ্বারা বহুল প্রশংসিত৷ তাঁর রচিত ‘প্রভাতরঞ্জনের ব্যাকরণ বিজ্ঞানে’ (৩ খণ্ড) তিনি বহু প্রচলিত অনেক বাংলা বানানের ভুলত্রুটি বা অর্থবিচ্যুতি দেখিয়ে সে সবের সংস্কার সাধনেও সচেষ্ট হয়েছেন৷ তাছামড়া, বাংলাভাষাকে সমৃদ্ধশালী করে তুলতে, সংস্কৃত থেকে আগত তৎসম শব্দগুলির উচ্চারণ ও অর্থ যথাযথভাবে প্রকাশ করতে, বিভিন্ন বিদেশী শব্দেরও উচ্চারণকে ঠিক ঠিক ভাবে প্রকাশ করার প্রয়োজনে, এছাড়া

বাংলা বানান সংস্কার

ব্যক্তি নয়, ব্যষ্টি

মানুষ অর্থে ‘ব্যক্তি’ শব্দটি একটি আপাদমস্তক ভুল শব্দ৷ মানুষ অর্থে ‘ব্যক্তি’ শব্দটির ব্যবহার কোন শুভ লগ্ণে হয়েছিল তা ভাষাবিজ্ঞানের পণ্ডিতেরা বলতে পারেন–তা আমার মত প্রাকৃত জনের কর্ম নয়৷ ‘ব্যক্তি’ শব্দটির মানে হচ্ছে ফুটিয়ে তোলা৷ মেয়েরা কাপড়ের ওপর যে সূচীকর্ম করেন তাকে যদি কেউ ‘সূচীব্যক্তি’ বলেন আমার তাতে আপত্তি নেই কিন্তু মানুষকে ব্যক্তি বলতে আপত্তি রয়েছে৷

‘নোতুন পৃথিবী’ বানান ‘নোতুন’ কেন?

 ‘‘সংস্কৃতে ‘নব’ শব্দের দু’টি অর্থ–একটি মানে ‘নয়’ (৯), দ্বিতীয় মানে নূতন৷ ‘নয়’ (৯) শব্দের বিশেষণে ‘নবম’ (ninth) নূতন অর্থে Comparative degree- েত নবতর, কিন্তু Superlative degree েত নবতম ও নবতন৷ যেখানে কারও সঙ্গে তুলনা না করে বলা হচ্ছে এটি সবচেয়ে নূতন, সেখানে ‘নবতন’ আর যেখানে অনেকের সঙ্গে তুলনা করে’ বলা হচ্ছে, এটি সবচেয়ে নূতন সেখানে ‘নবতম’৷ নবতম > নওতন > নওতুন > নোতুন৷ ভালভাবে মনে রাখা দরকার যে, ‘নূতন’ ও ‘নোতুন’ এক নয়৷ ‘নূতন’ একটি তৎসম শব্দ যার ইংরেজী প্রতিশব্দ new আর ‘নোতুন’ একটি তদ্ভব শব্দ যার মানে যা সবচেয়ে নূতন৷ যেমন অনেকের সঙ্গে তুলনা করে যদি বলি যে এটি সবচেয়ে পুরোনো  তার জন্যে

বাংলা বানান প্রসঙ্গে

শ্রী প্রভাতরঞ্জন সরকার

সোচ্চার নয়, সরব

আজকাল বহু শিক্ষিত মানুষও ‘সরব’ (vocal) বোঝাতে গিয়ে ‘সোচ্চার’ কথাটা প্রায়শঃ লিখে থাকেন বা বলে থাকেন৷ শব্দটা আগাপাস্তলা ভুল৷ উচ্চারূণ>উচ্চার৷ ‘উচ্চার’ মানে ‘বিষ্ঠা’৷ ‘ঔচ্চার’ মানে ‘বিষ্ঠা সম্বন্ধীয়’৷ উচ্চারেণ সহ ইত্যর্থে ‘সোচ্চার’ (তৃতীয়া তৎপুরুষ সমাস) যার মানে হচ্ছে যিনি মলত্যাগ করেছেন কিন্তু এখনও জলশৌচ করেননি৷ মলত্যাগকালে কোঁথ দেওয়াকেও ‘উচ্চার’ বলা হয়৷ অতএব ‘সোচ্চার’ শব্দের আরেকটি মানে হ’ল যে মলত্যাগ করবার জন্যে কোঁথ দিচ্ছে৷ কেবল সংস্কৃত বা বাংলা ব্যাকরণেই নয়, বাংলা ভাষায় অন্য ভাষার যে সব শব্দ আছে সেগুলো একটু মানে বুঝে ব্যবহার করলে ভাল হয়৷

বাংলা বানান সংস্কার

জাদুগর

‘গর’ প্রত্যয়যুক্ত ফারসী শব্দ ‘সওদাগর’ অর্থাৎ যিনি সওদা বোঝেন৷ ‘জাদুগর’ অর্থে যিনি জাদু জানেন, বোঝেন৷ এখানে বলে রাখা ভাল যে কেউ কেউ ‘জাদুগর’ বানানের পরিবর্ত্তে ‘যাদুকর’ এইরকম বানান লেখেন৷ তাঁরা শব্দটিকে ‘যাদু’ শব্দের উত্তর কৃ  অল্ করে দেখাতে চান৷ কিন্তু তা ঠিক নয়৷ ‘জাদু’ ফারসী শব্দ৷ ‘জাদু’ জানেন, বোঝেন এই অর্থে ফারসী প্রত্যয় ‘গর’ যুক্ত হয়ে হয়েছে ‘জাদুগর’৷ তাই ‘যাদুকর’ বানানের টিকি থেকে ন্যাজের ডগা পর্যন্ত ভুল৷ ‘জাদুগর’ শব্দের সংসৃক্ত প্রতিশব্দ হচ্ছে ‘বাজিকর’৷ ‘কর’ সংসৃক্ত প্রত্যয়৷ ফারসীতে ‘কর’ প্রত্যয় নেই৷ ‘কার’ বলে যে শব্দটি রয়েছে তা প্রত্যয় নয়৷ ‘কার’ মানে ফারসীতে ‘কাজ’৷ ‘জাদু’ শব্দের সংসৃক

বাংলা বানান সংস্কার - ‘ভোট’ নয়, ‘বোট’

শ্রী প্রভাত রঞ্জন সরকার

আমরা এই পত্রিকায় Vote কে বোট  লিখছি এই  কারণে  যে ইংরেজী V’ শব্দটির  যথার্থ উচ্চারণ বাংলার  অন্তস্থ-‘ব’৷ কিন্তু  বর্তমান  বাংলা বর্ণমালায়  বর্গীয় - ৰ ও অন্তঃস্থ ‘ব’ একইভাবে  লেখা হয়--- যা  যুক্তিসঙ্গত  নয়৷  কারণ  বর্গীয় ‘ৰ’ --- অর্থাৎ (প, ফ -এর  পর যে ব’  তার উচ্চারণ  ইংরেজী B’ -এর  মতো৷ তাই  মহান দার্শনিক  শ্রী প্রভাতরঞ্জন  সরকারের  অভিমত, বর্গীয় ‘ৰ’--- কে  ‘’ -এইভাবে  লেখা উচিত, আর  অন্তঃস্থ  ‘ব’  কে ‘ব’ যেমন  লেখা হয়  সেভাবেই  লেখা উচিত৷ 

তাই  ইংরেজী  শব্দ Bat , Ball , Ban -কে বাংলায়  লিখতে হবে যথাক্রমে ব্যাট, ৰল, ৰান

বাংলা বানান প্রসঙ্গে

ইতোপূর্বে, ইতোমধ্যে :   ইতিপূর্বে, ইতিমধ্যে–‘ইতিপূবে’, ‘ইতিমধ্যে’ দুটো শব্দই অশুদ্ধ৷ কারণ, শুদ্ধ শব্দগুলি হচ্ছে ‘ইতঃপূর্বে’, ‘ইতঃমধ্যে’৷ তবে ইচ্ছে গেলে বিসর্গের ব্যবহার না করেও ‘ও’–কার দিয়ে কাজ চালাতে পারি৷ লিখতে পারি ‘ইতোপূর্বে’, ‘ইতোমধ্যে’৷

ওই : ‘ও–ই’ শব্দটি বাংলা ‘ও’ শব্দটি থেকে এসেছে৷ তাই তার বানান ‘ও–ই’ হতেই হবে–‘অ–ই’ অথবা ‘ঐ’ দিয়ে লিখলে চলবে না৷

উচিত: বচ + ণচ + ক্ত = উচিত৷ মনে রাখা দরকার, ‘ক্ত’ প্রত্যয়ান্ত শব্দে খণ্ড ‘ত’ (ৎ) বা হসন্তযুক্ত ব্যঞ্জন হয় না৷ তাই ‘উচিত’ বানান পুরো ‘ত’ দিয়ে লিখতে হবে, খণ্ড ‘ত’ (ৎ) দিলে চলবে না৷

বাংলা বানান সংস্কার

ন্যাজ

অনেকে ‘ন্যাজ’ না বলে বলে ‘লেজ’ বা ‘ল্যাজ’৷ কিন্তু সেটা ঠিক নয়৷ সংস্কৃত ‘ন্যুব্জ’ থেকে ভাষাতত্ত্বের বিশেষ নিয়মে ‘ন্যাজ’ হতে পারে, ‘লেজ’ বা ‘ল্যাজ’ হতে পারে না৷ কেননা মূল শব্দের বানানে দন্ত্য ‘ন’ রয়েছে৷ তার বিবর্ত্তিত রূপে ‘ল’ আসবে কোত্থেকে? শব্দটা ‘লাঙ্গুল’ থেকেও আসে নি কারণ লাঙ্গুল–এ ‘জ’ অক্ষরটি নেই৷ এমনকি ‘দ’–ও নেই৷ অনেক সময় ‘দ’ বিবর্ত্তিত হয়ে ‘জ’ হয়ে যায়৷ ‘লাঙ্গুল’–এর তদ্ভব বাংলা শব্দ ‘নেঙ্গুন’৷ এই শব্দটি আমি বীরভূমের গ্রামে শুণেছি.......একটি ছড়ায় ঃ ‘‘ছুতোরে কাঠ কাটে/বগাতে নেঙ্গুন নাড়ে৷’’

জ্যোতিঃ

বাংলা বানান প্রসঙ্গে

কর্ষক ঃ এমনিতে যাঁরা চাষবাস নিয়ে থাকেন তাঁদের জন্যে সংস্কৃত ভাষায় বেশি প্রচলিত শব্দ দু’টি রয়েছে–কৃষীবল ও কর্ষক৷ ‘কর্ষক’ শব্দটি কৃষ ধাতু থেকে উৎপন্ন৷ যাঁরা এই কর্ষককে ‘কৃষক’ বানিয়ে ফেলেছেন তাঁরা না জেনেই এই ভুল করেছেন৷ আর যাঁরা আজও ‘কৃষক’ লেখেন তাঁরা ভুলকে ভুল না জেনেই লেখেন৷ আমরা ‘আকর্ষক’ ‘বিকর্ষক’ বলবার সময় ঠিক বলি কিন্তু কেন বুঝি না ‘কর্ষক’ বলবার সময় ভুল করে কৃষক বলে ফেলি৷

 

বাংলা বানান প্রসঙ্গে

করদাতৃগণ, নেতৃগণ, ভ্রাতৃগণ, বত্তৃণগণ, ভ্রাতৃবর্গ / করদাতাগণ, নেতাগণ, ভ্রাতাগণ, বক্তাগণ, ত্রাতাবর্গ–যৌগিক পদে অনেক সময় দেখা যায় লোকে বলবার সময় বা  লেখবার সময় পূর্ব পদস্থিত ‘তৃচ’ প্রত্যয়ান্ত শব্দটিতে মূল শব্দরূপ না রেখে প্রথমার একবচন ব্যবহার করে থাকেন৷ যেমন, ‘কর্ত্তৃগণ’ না লিখে লেখেন ‘কর্ত্তাগণ’৷ মনে রাখতে হবে মূল শব্দটি ‘কর্ত্তৃ’ যার প্রথমার একবচনে ‘কর্ত্তা’৷ তাই নিয়মানুসারে যৌগিক পদে মূল শব্দটি ব্যবহার করা হয়৷ অর্থাৎ ‘কর্ত্তাগণ’ না লিখে লিখতে হবে ‘কর্ত্তৃগণ’৷ অনুরূপভাবে ‘করদাতাগণ’, ‘নেতাগণ’, ‘ভ্রাতাগণ’ ‘বক্তাগণ’, ‘ত্রাতাবর্গ’, শব্দগুলির শুদ্ধরূপ হ’ল ‘কর্ত্তৃগণ, ‘করদাতৃগণ’, ‘নেতৃগণ’, ‘ভ্রাতৃ

বাংলা বানান সংস্কার

প্রাউট–প্রবক্তা মহান দার্শনিক ঋষি শ্রীপ্রভাতরঞ্জন সরকার ভাষাতত্ত্ব ও ব্যাকরণ বিজ্ঞানের ওপরও বহু অমূল্য পুস্তক রচনা করেছেন, যা কলকাতা, ঢাকা, কল্যাণী প্রভৃতি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা অধ্যাপক সহ বিশিষ্ট ভাষাতাত্ত্বিক ও জ্ঞানী গুণীজনের দ্বারা বহুল প্রশংসিত৷ তাঁর রচিত ‘প্রভাতরঞ্জনের ব্যাকরণ বিজ্ঞানে’ (৩ খণ্ড) তিনি বহু প্রচলিত অনেক বাংলা বানানের ভুলত্রুটি বা অর্থবিচ্যুতি দেখিয়ে সে সবের সংস্কার সাধনেও সচেষ্ট হয়েছেন৷ এ ধরনের কিছু বাংলা বানান সম্পর্কে তাঁর অভিমত তাঁর ভাষাতেই প্রকাশ করা হচ্ছে ঃ      ––––জ্ঞানভিক্ষু

বাংলা বানান সংস্কার

[প্রাউট–প্রবক্তা মহান দার্শনিক ঋষি শ্রীপ্রভাতরঞ্জন সরকার ভাষাতত্ত্ব ও ব্যাকরণ বিজ্ঞানের ওপরও বহু অমূল্য পুস্তক রচনা করেছেন, যা কলকাতা, ঢাকা, কল্যাণী প্রভৃতি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা অধ্যাপক সহ বিশিষ্ট ভাষাতাত্ত্বিক ও জ্ঞানী গুণীজনের দ্বারা বহুল প্রশংসিত৷ তাঁর রচিত ‘প্রভাতরঞ্জনের ব্যাকরণ বিজ্ঞানে’ (৩ খণ্ড) তিনি বহু প্রচলিত অনেক বাংলা বানানের ভুলত্রুটি বা অর্থবিচ্যুতি দেখিয়ে সে সবের সংস্কার সাধনেও সচেষ্ট হয়েছেন৷ এ ধরনের কিছু বাংলা বানান সম্পর্কে তাঁর অভিমত তাঁর ভাষাতেই প্রকাশ করা হচ্ছে ঃ  ––––জ্ঞানভিক্ষু]

 

বাংলা বানান সংস্কার

কর্ষক

এমনিতে যাঁরা চাষবাস নিয়ে থাকেন তাঁদের জন্যে সংস্কৃত ভাষায় বেশি প্রচলিত শব্দ দু’টি রয়েছে–কৃষীবল ও কর্ষক৷ ‘কর্ষক’ শব্দটি কৃষ ধাতু থেকে উৎপন্ন৷ যাঁরা এই কর্ষককে ‘কৃষক’ বানিয়ে ফেলেছেন তাঁরা না জেনেই এই ভুল করেছেন৷ আর যাঁরা আজও ‘কৃষক’ লেখেন তাঁরা ভুলকে ভুল না জেনেই লেখেন৷ আমরা ‘আকর্ষক’ ‘বিকর্ষক’ বলবার সময় ঠিক বলি কিন্তু কেন বুঝি না ‘কর্ষক’ বলবার সময় ভুল করে কৃষক বলে ফেলি৷

সর্জন

বাংলা বানান সংস্কার

কর্ষক

এমনিতে যাঁরা চাষবাস নিয়ে থাকেন তাঁদের জন্যে সংসৃক্ত ভাষায় বেশি প্রচলিত শব্দ দু’টি রয়েছে–কৃষীবল ও কর্ষক৷ ‘কর্ষক’ শব্দটি কৃষ ধাতু থেকে উৎপন্ন৷ যাঁরা এই কর্ষককে ‘কৃষক’ বানিয়ে ফেলেছেন তাঁরা না জেনেই এই ভুল করেছেন৷ আর যাঁরা আজও ‘কৃষক’ লেখেন তাঁরা ভুলকে ভুল না জেনেই লেখেন৷ আমরা ‘আকর্ষক’ ‘বিকর্ষক’ বলবার সময় ঠিক বলি কিন্তু কেন বুঝি না ‘কর্ষক’ বলবার সময় ভুল করে কৃষক বলে ফেলি৷

অসংসৃক্তি

বাংলা বানান প্রসঙ্গে৷

* ও, আর/এবং–সংযোজক ‘ও’–এর পরিবর্ত্তে অনেকে প্রায়শঃ ‘এবং’ শব্দটির ব্যবহার করে থাকেন৷ কিন্তু ‘এবং’ মানে ‘ও’ নয়৷ ‘এবং’ বাংলা শব্দও নয় এটি একটি সংসৃক্ত শব্দ, যার মানে ‘এইভাবে’, ‘এইরকমে’৷ যেমন, ‘এবং কুরু’ মানে এইভাবে করো৷ সুতরাং ‘ও’–র পরিবর্ত্তে ‘এবং’ প্রয়োগ করলে চলক্ষে না৷ পরিবর্ত্তে ‘ও’ বা ‘আর’ লিখলেই ভাল হয়৷

বাংলা বানান প্রসঙ্গে

জ্ঞানভিক্ষু

প্রাউট–প্রবক্তা মহান দার্শনিক ঋষি শ্রীপ্রভাতরঞ্জন সরকার ভাষাতত্ত্ব ও ব্যাকরণ বিজ্ঞানের ওপরও বহু অমূল্য পুস্তক রচনা করেছেন, যা কলকাতা, ঢাকা, কল্যাণী প্রভৃতি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা অধ্যাপক সহ বিশিষ্ট ভাষাতাত্ত্বিক ও জ্ঞানী গুণীজনের দ্বারা বহুল প্রশংসিত৷ তাঁর রচিত ‘প্রভাতরঞ্জনের ব্যাকরণ বিজ্ঞানে’ (৩ খণ্ড) তিনি বহু প্রচলিত অনেক বাংলা বানানের ভুলত্রুটি বা অর্থবিচ্যুতি দেখিয়ে সে সবের সংস্কার সাধনেও সচেষ্ট হয়েছেন৷ এ ধরনের কিছু বাংলা বানান সম্পর্কে তাঁর অভিমত তাঁর ভাষাতেই প্রকাশ করা হচ্ছে ঃ

জাদুগর

‘নোতুন পৃথিবী' : ‘নোতুন’ বানান কেন?

‘নোতুন পৃথিবী’র ‘নোতুন’ বানানটি নিয়ে অনেকে প্রশ্ণ তোলেন৷
নিম্নে শ্রীপ্রভাতরঞ্জন সরকারের বর্ণবিচিত্রা–১ম পর্ব পুস্তক থেকে কিছু অংশ উদ্ধৃত করছি৷ এ থেকেই পাঠকবর্গ ‘নোতুন’ বানানটির তাৎপর্য বুঝতে পারবেন৷